| |

দুর্গাপুর-কলমাকান্দার সীমান্তবর্তী অবহেলিত আদিবাসী জনগোষ্ঠির মাঝে হাস মুরগি ও সেলাই মেশিন বিতরণ।

মোঃ মোহন মিয়া : নেত্রকোণার দুর্গাপুর-কলমাকান্দার লেঙ্গুড়া ইউনিয়নের ভারত বাংলাদেশ সীমান্তে অবহেলিত আদিবাসী জনগোষ্ঠির ২টি গ্রাম “কালাপানি ও চকলেতপাড়া” প্রায় ৩ হাজার আদিবাসী জনগোষ্ঠির মধ্যে পৌছেনী শিক্ষার আলো। নেই রাস্তা ঘাটের ব্যবস্থা, স্বাস্থ্য সচেতনতা ও কর্মসংস্থানেরও নেই তাদের কোন ব্যবস্থা। বছরে প্রায় ৬ মাস গ্রামগুলি পানিতে ভাসতে থাকে। স্থানীয় সরকার লেঙ্গুড়া ইউনিয়ন পরিষদ এ গ্রাম ২টির উপর বিমাতাশুলভ আচারণ করে আসছেন। ইউপি চেয়ারম্যাম হাফেজ মোহাম্মদ আলীর অধক্ষতা ও উধাসিনতায় আদিবাসী জনগোষ্ঠীরা অনেক পিছিয়ে রয়েছে। লোকজনগুলি পাচ্ছেনা তেমন কোন তথ্য সেবা নিতে। এমনটি জানালেন স্থানী আদিবাসী নেত্রীবৃন্দরা। বাংলাদেশ এনজিও ফাউন্ডেশন (বিএনএফ) এর অর্থায়নে দুর্গাপুর-কলমাকান্দার সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান পল্লীবন্দু উন্নয়ন সংস্থার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আল-মামুন শনিবার এলাকার অবহেলিত আদিবাসীর মধ্যে ৫টি সেলাই মেশিনসহ ১৫০টি দেশিও হাস মুরগি আনুষ্ঠানিক ভাবে বিনামূল্যে বিতরণ করেন। সাহায্য সামগ্রী বিতরণের সময় উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্ড জনপ্রতিনিধি মেরী রংদী, মোঃ নূর হোসেন, আ’লীগ সহ-সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ মাস্টার, যুবলীগ নেতা জয়নাল আবেদীন, কহিনূর মান্দা, জরিনা রিছিল, আয়বিনা রিছিল, পনা রংদী, সখিনা মানকিন, বনালী রেমা, ইরা মানকিন, প্রভাতি রাংসা, রাখি ম্রং, গীতা সাংমা ও প্রিন্টমিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ প্রমূখ।