| |

ঝিনাইগাতীতে রাজাকার পুত্রকে নিয়ে বিপাকে আওয়ামী লীগ সভাপতি

ঝিনাইগাতী প্রতিনিধি শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলা আওয়ামী লীগে রাজাকার পুত্র সম্পাদক নিয়ে বিপাকে রয়েছেন দলের সভাপতি। ওই রাজাকার পুত্রকে নিয়ে দলের কর্মকান্ড চালাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে দলের সভাপতি নাইমকে । জানা যায়, ১যুগ পর ২০১৪ সালের ৪ ডিসেম্বর উপজেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। এ কাউন্সিলে এসএমএ ওয়ারেজ নাইম সভাপতি ও আমিরুজ্জামান লেবু সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন। অভিযোগ রয়েছে, আমিরুজ্জামান লেবু’র পিতা মরহুম এসএম তমিজ উদ্দিন মানবতা বিরোধী অপরাধের সাথে জড়িত। ১৯৭১ সালে পাক হানাদার বাহিনী’র দোষর পীস কমিটি’র সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন তিনি। বর্তমানে ঝিনাইগাতী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সৃজনকৃত মানবতা বিরোধী অপরাধীদের ৩১নং তালিকায় তার নাম অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। ওই মানবতা বিরোধী অপরাধীর পুত্র দলের সাধারন সম্পাদক নির্বাচত হওয়ায় দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে নানা গুঞ্জন ও প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। দলের বহু ত্যাগী নেতাকর্মী তাকে পাস কাটিয়ে চলতে থাকে। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যেও শুরু হয় একই প্রতিক্রিয়া। উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের তোপের মুখে গত মহান বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে আমিরুজ্জামান লেবুকে বয়কট করা হয়। তাকে বাদ দিয়ে শুধু দলের সভাপতি এসএমএ ওয়ারেজ নাইমের কাছ থেকে সংবর্ধনা গ্রহণ করেন মুক্তিযোদ্ধারা। বর্তমানে তার বিভিন্ন কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা। মোটকথা তাকে নিয়ে দলের বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালনা করতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে দলের সভাপতিকে।