| |

ভয়াবহ লোডশেডিংএ উত্তর টাঙ্গাইলে পৌনে ২লক্ষ পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহকের ভোগান্তি চরমে

এ কিউ রাসেল : ওপাড়ে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ফলদা গ্রাম, আর এপাড়ে গোপালপুর উপজেলার দৌলতপুর গ্রাম। মাঝ বরাবর ঝিনাই নদী। সন্ধ্যা হলে ওপাড়ের ফলদা বাজার ও আশ-পাশের গ্রাম বিদ্যুতের আলোয় ঝলমল করে। লোকজন চায়ের দোকান ও বাসাবাড়িতে টেলিভিশন দেখে সময় কাটায়। ছেলে মেয়েরা বিদ্যুতের আলোয় লেখাপড়া করে। স্কীম মালিকরা বৈদ্যুতিক মোটরে বোরো জমিতে পানি সেচ দেয়।
তখন এপাড়ে উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামসহ আশপাশের ৮/১০টি হাট-বাজার ও গ্রামে থাকে ভূতুড়ে অন্ধকার। সন্ধ্যা নামতেই বন্ধ হয়ে যায় দোকানপাট। ছেলে- মেয়েরা মোমবাতির আলোয় লেখাপড়া রেখে বিছানায় গা এলিয়ে দেয়। বন্ধ থাকে ইরি-বোরোর জমিতে সেচের কাজ ।
ওপাড়ে বিদ্যুত সরবরাহ করে ভূঞাপুর পিডিবি। আর এপাড়ে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুত সমিতি-১, গোপালপুর জোনাল অফিস। উত্তর টাঙ্গাইলের ৫উপজেলায় পল্লী বিদ্যুতের পৌনে ২লক্ষ গ্রাহকের ২০ঘন্টাই বিদ্যুত বিহীন কাটাতে হয়।
ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুত সমিতি-১, টাঙ্গাইলের গোপালপুর, ভূঞাপুর, মধুপুর, ধনবাড়ি, ও ঘাটাইল উপজেলায় (ঘাটাইল ও ভূয়াপুর পৌর এলাকাবাদে) বিদ্যুত বিতরণ করে।
জামালপুর গ্রীড থেকে ৩৩কেভি লাইনের মাধ্যমে গোপালপুর উপজেলার আলমনগর সাব-স্টেশনে, মধুপুর উপজেলার টেংরি, ধনবাড়ি উপজেলার হাজরাবাড়ি এবং টাঙ্গাইল গ্রীড থেকে ঘাটাইল উপজেলার শাহপুর সাব- স্টেশনের মাধ্যমে বিদ্যুত সরবরাহের ব্যবস্থা রয়েছে। পল্লী বিদ্যুতের চাহিদা ৩০মেগাওয়াট। সরবরাহ ৮/১০ মেগাওয়াট।
এজন্য এক প্রান্তের ফিডার বন্ধ করে অন্য প্রান্তের ফিডার চালু করা হয়। এ প্রক্রিয়ায় গ্রাহকরা ২৪ ঘন্টায় ৬/৭ ঘন্টা বিদ্যুৎ পায়। লাইন রেনুভেশন না করায় এবং গাছপালা ও বাঁশঝাঁড় পরিস্কার না করায় তার ছিড়ে প্রায়ই বিদ্যুত সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। গত এপ্রিল থেকে ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত ১১মাসে ১১দফা তার ছিড়ে ২০/২৫ দিন ১৮ থেকে ২০ ঘন্টার ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে।
গোপালপুর, ধনবাড়ি মধুপুর, উপজেলা শিল্প ও বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করেন, বিদ্যুতের দাম কয়েক দফা বাড়ানো হলেও গ্রাহকরা চাহিদার এক তৃতীয়াংশ বিদ্যুত সরবরাহ পাচ্ছেনা। তারা ঘাটাইল পিডিবি পর্যন্ত ন্যাশনাল গ্রীড লাইন সম্প্রসারণের দাবি জানান।
ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুত সমিতি-১, গোপালপুর জোনাল অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে বিদ্যুত সরবরাহে সাময়িক সমস্যা চলছে। দুই এক মাস পর পরিস্থিতির উন্নতি ঘটবে।