| |

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার মান উন্নয়ন করতে হলে শিক্ষকদের প্রধান ভূমিকা রাখতে হবে-ভিসি মোহীত উল আলম

রফিকুল ইসলাম শামীমঃ জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড.মোহীত উল আলম বলেছেন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার মান উন্নয়ন করতে হলে শিক্ষকদের প্রধান ভূমিকা রাখতে হবে। আমাদের দেশ ছোট দেশ হলেও আমাদের দেশের জনসংখ্যা অনেক বেশি। আর প্রতি বছর উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে আগ্রহী শিক্ষার্থীর তুলনায় উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও কম। এই কম সংখ্যক উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কীভাবে শিক্ষার মান উন্নত করা যায় সেটাই এই ওয়ার্কশপের মূল লক্ষ্য। একজন শিক্ষক যদি তার তথ্যভিত্তিক ও সঠিক জ্ঞান দিতে না পারেন তাহলে শিক্ষার্থী ভুল পথে পরিচালিত হবে। জ্ঞান আসলে বাতাসের মতো, তাকে দেখাও যায় না, ধরাও যায় না কিন্তু তার ফলাফল আছে। বাতাসকে শৃঙ্খলিত করে আমরা অনেক কাজ করতে পারি, ঠিক একইভাবে জ্ঞানকে শৃঙ্খলিত করেও আমরা অনেক কাজ করতে পারি। জ্ঞানের নেতিবাচক ব্যবহারও হয়ে থাকে, তবে আমাদের শিক্ষার্থীদের জ্ঞানের ইতিবাচক ব্যবহার শেখাতে হবে। তিনি গতকাল বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার এন্ড পারফরমেন্স স্টাডিজ বিভাগের স্টুডিও থিয়েটার হলে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন(ইউজিসি)’র হাইয়ার এডুকেশন কোয়ালিটি এনহ্যান্সমেন্ট প্রজেক্ট (হেকেপ)-এর আওতায় জাককানইবি’র ইন্সটিটিউশনাল কোয়ালিটি অ্যাশুরেন্স সেল(আইকিউএসি) এর উদ্যোগে ইনসেপশন ওয়ার্কসনে প্রধান অতিথির বক্তব্য দান কালে এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আইকিউএসি’র পরিচালক প্রফেসর ড. রশিদুন্ নবী। সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন- ‘বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে ইউজিসির সহযোগীতায় আমরা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার মানোন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। এই ওয়ার্কশপের মাধ্যমে আমরা একে অপরের সাথে মত এবং অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে গবেষণা কার্যক্রমকে আরও কার্যকর করতে পারব।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ইউজিসি’র ইন্সটিটিউশনাল কোয়ালিটি অ্যাশুরেন্স ইউনিট (আইকিউএইউ)-এর প্রধান প্রফেসর ড. মেজবাহউদ্দীন আহমেদ। তিনি তার বক্তব্যে বলেন-আমাদের শিক্ষার মান ভালো না খারাপ সেটা বিষয় না। বিষয় হলো আমাদের শিক্ষার মান যেখানেই থাক সেখান থেকে আরও উন্নত করা সম্ভব। এজন্য আমাদের দুর্বলতাগুলো আগে চিহ্নিত করে তা দূর করতে হবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কিউএ স্পেশালিস্ট প্রফেসর ড. এম আবুল কাশেম। তিনি বলেন-শিক্ষাকে আমরা শিক্ষক কেন্দ্রীক থেকে শিক্ষার্থী কেন্দ্রীক করতে চাই। এজন্য শিক্ষার্থীকে কর্মমূখী করে তুলতে হবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন প্রফেসর ড. সঞ্জয় কুমার অধিকারী । তিনি তার বক্তব্যে বলেন-শিক্ষা ও গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফল সমাজের উন্নয়নে কাজে লাগাতে হবে। বিশেষ অতিথি জাককানইবি’র ট্রেজারার প্রফেসর এ এম এম শামসুর রহমান। তিনি তার বক্তব্যে বলেন-গবেষণারত শিক্ষকবৃন্দ এই ওয়ার্কশপের মাধ্যমে তাদের করণীয় বিষয়ে আরও সচেতন হতে পারবেন।
রফিকুল ইসলাম শামীম,ত্রিশাল।