| |

হাজার বছরের শিল্প সংস্কৃতিকে ধারণ করে আমাদেরকে এগিয়ে যেতে হবে -গোলাম মোস্তফা

আঞ্চলিক প্রতিনিধি : বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে বাঙ্গালীর হাজার বছরের ঐতিহ্য, শিল্প ও সংস্কৃতিকে ধারণ করে সামনে এগিয়ে চলার আহ্বান জানিয়ে ভালুকা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা বলেছেন, বিদেশী সংস্কৃতির আগ্রাসনে দেশীয় সংস্কৃতি তথা প্রকৃত বাঙ্গালীপনা হারিয়ে যেতে বসেছে। কাজেই ঐতিহ্য ভিত্তিক সংস্কৃতিকে লালনের মাধ্যমে আমাদেরকে বাঙ্গালীর হারিয়ে যাওয়া গৌরব ফিরিয়ে আনতে হবে। গত বৃহস্পতিবার বাংলা নব-বর্ষ ১৪২৩ উদ্যাপন উপলক্ষ্যে ভালুকা উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত ভালুকা ডিগ্রী কলেজ মাঠে বৈশাখী মেলার উদ্বোধন কালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। নববর্ষ উদ্যাপন কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুল আহসান তালুকদারের সভাপতিত্বে ওই অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন পৌর মেয়র ডা. একেএম মেজবাহ্ উদ্দিন কাইয়ুম, উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব কাজিম উদ্দিন আহ্মেদ ধনু, উপজেলা আ’লীগের সহসভাপতি আলহাজ্ব এডভোকেট শওকত আলী, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম পিন্টু, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মনিরা সুলতানা মনি, উপজেলা মহিলা আ’লীগের সভাপতি ড. সেলিনা রশিদ, উপজেলা শিক্ষক সমিতির সভাপতি আবদুর রশিদ মাস্টার, সাধারণ সম্পাদক এবি সিদ্দিক মাস্টার, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার কে এম আবুল হোসেন মিলন, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি কেএম ইদ্রিস আলী, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি আনিছুর রহমান খান রিপন ও সাধারণ সম্পাদক এজাদুল হক পারুল। এর আগে ওই দিন সকালে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে একটি বণ্যাঢ্য মঙ্গল শুভাযাত্রা বের করা হয়। শুভাযাত্রাটি শহরের উপজেলা সদরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে ভালুকা ডিগ্রী কলেজ মাঠে গিয়ে শেষ হয়। শুভা যাত্রায় ঘোড়ার গাড়ি, মহিষের গাড়ি ও গরুর গাড়িসহ বিভিন্ন গ্রামীণ লোকজ কুটিরশিল্প স্থান পায়। এছাড়াও ওই শোভাযাত্রায় অংশ নিয়ে ভালুকা নাট্যগোষ্ঠির সদস্যরা ঐতিহাসিক যাত্রা পালার পোশাক গায় দিয়ে বাংলাদেশে হিন্দু-মুসলমানের সহাবস্থান ও মায়ের কূলই শিশুর জন্য নিরাপদ স্থান প্রভৃতি বিষয়টি বিভিন্ন আদলে ফুটিয়ে তুলেন। উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যরা বর্ণিল সাজে সেঁজে ওই শোভাযাত্রায় অংশ গ্রহণ নেয়। এদিকে বাংলা নব-বর্ষ উদ্যাপন উপলক্ষ্যে ভালুকা উপজেলা প্রশাসন উপজেলা পরিষদ চত্বরে পান্তা-ইলিশের আয়োজন করা হয়। বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ অংশ নেন ওই পান্তা-ইলিশে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার নববর্ষ উদ্যাপন কমিটির সভাপতি কামরুল আহসান তালুকদার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাখাওয়াত হোসেনসহ উপজেলা প্রশাসনের কর্মকতারা সার্বক্ষণিক উপস্থিত থেকে স্থানীয় প্রশাসন আয়োজিত ওই কর্মসূচিগুলোর তদারকি করেন। এদিকে, বৈশাখী মেলার নিরাপত্তা বিধানের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক পুলিশসহ বিভিন্ন সংস্থার নিরাপত্তা কর্মী মোতায়ন করা হয়। পরে ওই দিন বিকেল ৫টায় ভালুকা ডিগ্রী কলেজ মাঠে আয়োজিত বৈশাখী মেলার সমাপ্তি টানা হয়।