| |

দুর্গাপুর গেস্ট হাউজে ব্যবসায়ী হতাকান্ডের রহস্য উন্মোচন মাত্র ৫’শ টাকার জন্যে নুরুল’র গলা কাটা হয়!

সৌমিন খেলন : নেত্রকোনার দুর্গাপুর উপজেলার উৎরাইল বাজারে বিচিত্রা গেস্ট হাউজে শুক্রবার (১ এপ্রিল) সকালের দিকে মাত্র ৫’শ টাকার জন্যে গলা কেটে ব্যবসায়ী নুরুলকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। নুরুল কক্সবাজার জেলার চকোরিয়া উপজেলার আবু সিদ্দিকের ছেলে। পুলিশ ইতোমধ্যে হত্যাকারী মুন্না ওরফে রনিকে (২৪) সনাক্ত করে তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি গ্রহণের রোববার (১৭ এপ্রিল) ওয়ান সিক্সটিফোরে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন, দুর্গাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান হুমায়ূন কবীর। এরআগে সোমবার (১১ এপ্রিল) গভীর রাতে আসামীকে শ্রীপুর থেকে গ্রেফতার করে নেত্রকোনায় নিয়ে আসা হয়। হত্যাকারী রনি পূর্বধলা উপজেলার নাটেরকোনা গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে। হত্যাকান্ডের বিশ্লেষন দিতে গিয়ে ওই পুলিশ কর্মকর্তা জানান, নুরুল ব্যবসায়ীক কাজে মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) রাতে আশীষ সাংমার বিচিত্রা গেষ্ট হাউজের আন্ডারগ্রাউন্ড ফ্লোরের ২নম্বর কক্ষ বুকিং নিয়ে দুর্গাপুরে অবস্থান করতে থাকেন। এসময় তার সঙ্গে রনি’র পরিচয় হয়। নুরুল গেস্টে হাউজে বিভিন্ন সময় রনিকে নিয়ে অবস্থান করেন। শুক্রবার (১ এপ্রিল) সকালে নাস্তা করতে গেষ্ট হাউজ থেকে বের হয়ে ফেরার সময় তার কক্ষে রনিকে নিয়ে প্রবেশ করেন। রনি মাদক সেবনের জন্য নুরুল’র কাছে ৫’শ টাকা দাবি করেন। কিন্তু নুরুল ৫’শ টাকা দিতে অপারগতা জানিয়ে রনিকে ৫০ টাকা দেয়। আর তাতে ভীষণ ক্ষিপ্ত হয় রনি। পরে সে নুরুল’র দেওয়া টাকা নিয়ে বাজার থেকে একটি ধারালো ছুরি কিনে এনে গেস্ট হাউজে প্রবেশ করেন। এবং সেই ছুরি দিয়ে ঘুমন্ত নুরুলকে গলা কেটে হত্যা করে রুম থেকে নির্বিঘেœ বেরিয়ে যান। হত্যাকান্ডের এঘটনায় তখন গেস্ট হাউজের ম্যানেজার সুজন ও পান দোকানদার মন্তোষকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়। এদিকে পুলিশের পক্ষ থেকে নুরুল’র পরিবারের লোকজনকে খুঁজে বের করা হলে নুরুল’র ভাই সেলিম উল্লাহ দুর্গাপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে নুরুল’র মরদেহ হস্তান্তর করা হয়।