| |

ধর্মপাশায় দুইবছর পর ভয়াবহ ঝড়ে উপচে পড়া ১৫টি গাছ এক লাখ ৮২হাজার টাকায় নিলামে বিক্রি

ধর্মপাশা প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলা পরিষদ এলাকায় প্রায় দুই বছর আগে ভয়াবহ ঝড়ে বিভিন্ন প্রজাতির ছোট বড় ১৫টি গাছ উপচে পড়ে। দীর্ঘদিন ধরে এই গাছ গুলো বিক্রি না করায় রোদে বৃষ্টিতে গাছগুলো নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি সরকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছিল। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত উন্মুক্ত নিলাম ডাকের মাধ্যমে এ ১৫টি গাছ এক লাখ ৮২ হাজার টাকা মুল্যে স্থানীয় এক ব্যক্তির কাছে বিক্রি করা হয়েছে।
এলাকাবাসী, স্থানীয় কয়েকজন ব্যবসায়ী ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪সালের ২৭এপ্রিল ধর্মপাশা উপজেলায় ভয়াবহ ঝড় হয়। এতে উপজেলায় কাঁচা ও টিনসেড ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হওয়ার পাশাপাশি ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। ভয়বহ এই ঝড়ে উপজেলা পরিষদ এলাকার নানা স্থানে থাকা রেইনটি, আকাশি ও বটগাছ,কড়ই,শিলকড়ই সহ বিভিন্ন প্রজাতির ছোট বড় ১৫টি গাছ উপড়ে পড়ে। ওই বছরের মে মাসের প্রথম সপ্তাহে উপজেলা প্রশাসন এ গাছগুলো বিত্রির জন্য উন্মুক্ত নিলাম ডাকের আহ্বান করে। নিলাম ডাকে অংশগ্রহনকারী ১৫জন ব্যক্তি প্রত্যেকে ৩০হাজার টাকা করে জামানত দিয়ে এ নিলাম ডাকে অংশ নেন। স্থানীয় ব্যবসায়ী মোস্তাক আহমেদ সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে ৩লাখ ১১হাজার টাকায় নিলামে ওই গাছগুলো কেটে নেওয়ার অনুমতি পান। কিন্তু নিলাম কমিটিতে বন বিভাগের কোনো কর্মকর্তা না থাকায় তৎকালীন ইউএনও ওই উন্মুক্ত নিলাম বাতিল করে দেন। একই বছরের জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহে পুন নিলাম ডাক আহ্বান করা হয়। এক লাখ ৮২হাজার টাকায় সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে আবারও নিলাম পান মোস্তাক আহমেদ। কিন্তু গাছগুলো যথাসময়ে হস্তান্তর না করায় তিনি ২০১৫সালের জুলাই মাসের শেষের দিকে জামানতের ত্রিশ হাজার টাকা তুলে নেন। অন্যদিকে গাছগুলোর দাম তুলনামুলক কম হওয়ার অজুহাতে তখন সময়মতো সর্বোচ্চ দরদাতাকে হস্তান্তর করেনি উপজেলা প্রশাসন।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ঝড়ে পড়া ওই গাছগুলো বিক্রির জন্য উন্মুক্ত নিলাম ডাকের আহ্বান করা হয়। এতে কোনো প্রতিদ্বন্দী না থাকায় ৩০হাজার টাকা জামানত দিয়ে মেহেদী হাসান উজ্জ্বল নামের স্থানীয় এক ইউপি সদস্য একমাত্র এ নিলাম ডাকে অংশ নেন। এ ১৫টি গাছের দাম নির্ধারণ করা হয় এক লাখ ৮২হাজার টাকা। সমুদয় টাকা পরিশোধ করে ওই মুল্যে তিনি গাছগুলো নিতে পারবেন বলে নিলাম ডাকে উপস্থিত লোকজনদের সামনে তাঁকে জানিয়ে দেওয়া হয়।
ইউএনও মোহাম্মদ নাজমুল হক বলেন, ৩০হাজার টাকা জামানত দিয়ে স্থানীয় এক ব্যক্তি ঝড়ে উপড়ে পড়া ১৫টি গাছ বিক্রির নিলাম ডাকে অংশ নিয়েছিলেন। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সমুদয় টাকা পরিশোধ করে এ গাছগুলো নিলাম ডাকে অংশ নেওয়া ওই ব্যক্তি নিয়ে যেতে পারবেন। এর আগে তো গাছগুলোর একই দাম ছিল তাহলে কেন সে সময় গাছগুলো বিক্রি করা হয়নি এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আগে যিনি প্রথম হয়েছিলেন তিনি গাছগুলো নিতে অসম্মতি জানিয়ে আবেদন করায় গাছগুলো বিক্রি করা সম্ভব হয়নি।