| |

ধোবাউড়ায় অবৈধ হাট থেকে জমা তোলার নামে নিরব চাঁদাবাজি।

আবুল হাশেম ঃ ধোবাউড়ায় অবৈধ হাট থেকে চাঁদাবজির অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার রাজিবপুর হাট থেকে প্রতি সপ্তাহে ২ দিন স্থানীয় আইন উদ্দিন ও জহুর উদ্দিন প্রত্যেকটি দোকান থেকে ৫ থেকে ১০ টাকা করে চাঁদা তোলেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।উক্ত বাজারটি সরকারী তালিকাভুক্ত নয়। তারপরও এলাকাবাসী অভিযোগ করেন বিগত ২ বছর যাবৎ আইন উদ্দিন ও জহুর উদ্দিন চাঁদা তোলে আসছেন।তবে দোকানদারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে ভিন্ন তথ্য। বিঞ্জলা নামে এক আদিবাসী মহিলা প্রায় ২০ বছর আগে বাজারের জন্য জমি লিখে দিয়েছিলেন।কিন্তু আইন উদ্দিন ও জহুর উদ্দিন একটি প্রতিপক্ষ তৈরী করে আদালতে মামলা করে দেন।কিন্তু তাতেও বাজারের পক্ষে রায় আসে।এরপর আবার আদালতে আপিল করা হলে বর্তমানে মামলাটি ঝুলে আছে। এই অবস্থায় আইন উদ্দিন ও জহুর উদ্দিন মামলার খরচ বহন করে বাজারের পক্ষে রায় আনার কথা বলে দোকানদারদের কাছ থেকে চাঁদা তোলেন।দোকানদার শফিকুল ইসলাম ও সাদেক মিয়া বলেন মামলার তারিখ থাকলে কখনও কখনও ৫০০ বা তারও বেশী টাকা চাঁদা দিতে হয়। ইতোমেধ্য আইন উদ্দিন ও জহুর উদ্দিন দোকানদারদের সাথে প্রতারনা করে বাজারের জমি সঞ্জয় নামে এক আদিবাসীর নামে লিখে নিয়েছেন । এ ঘটনায় ফুঁসে উঠছে বাজারের ব্যাবসায়ীরা। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক জানান আইন উদ্দিন ও জুহুর উদ্দিন ব্যাবসায়ীদের কাছ থেকে দীর্ঘদিন ধরে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে কিন্তু জমি দিয়ে দিয়েছে অন্যজনকে। এখন দোকানদারদের হুমকি দিচ্ছে জমি কিনে না নিলে ব্যাবসা করতে পারবেনা।বাজারের ব্যাবসায়ীরা বাজারটি সরকারী তালিকাভুক্ত করার দাবি জানান। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) মোহাম্মদ আনিসুজ্জমান খান বলেন উক্ত বাজারটি কাগজপত্র জটিলাতায় সরকারী তালিকাভুক্ত করা যাচ্ছেনা।