| |

বকশীগঞ্জের বাট্টাজোড় ইউনিয়ন নিকাহ রেজিস্ট্রার নিয়ে ধু¤্রজাল সৃষ্টি

বকশীগঞ্জ প্রতিনিধি : জামালপুরের বকশীগঞ্জে বাট্টাজোড় ইউনিয়ন নিকাহ রেজিস্ট্রার নিয়ে ধু¤্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। এই ইউনিয়নে নিকাহ রেজিস্ট্রার আবু সাইদ দায়িত্ব পালন করা কালীন সময়ে সম্প্রতি আরেকজন হঠাৎ করে নিকাহ রেজিস্ট্রার দাবি করায় তা নিয়ে স্থানীয় জনগণের মধ্যে কানাঘুষা চলছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,গত ১২.২.২০১৫ ইং তারিখে হাইকোর্ট বিভাগের ৩০৮০/২০১০ নং রীট পিটিশনের রায়ের আলোকে বাট্টাজোড় ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার ইয়াকুব আলী শরীফের লাইসেন্স বাতিলের নির্দেশ দেন। ইয়াকুব আলীর লাইসেন্স বাতিলের পর বাট্টাজোড় ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার পদে গত ৩.৮.২০১৫ইং তারিখে ঝুড়ারপাড় গ্রামের আবু সাইদকে নিয়োগ দেয় আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। নিকাহ রেজিস্ট্রার আবু সাইদ তার দায়িত্ব পালন করা কালীন সময়ে গত কয়েকদিন থেকে সাবেক নিকাহ রেজিস্ট্রার ইয়াকুব আলী শরীফ নিজেকে ফের বৈধ নিকাহ রেজিস্ট্রার দাবি করে এলাকায় প্রচার শুরু করে। এমনকি বাট্টাজোড় ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে কাজী অফিস সংবলিত সাইবোর্ড ঝুলিয়ে রেখেছে। একই ভবনে কাজী আবু সাইদেরও সাইনবোর্ড ঝুলানো রয়েছে।
এনিয়ে এলাকায় ব্যাপক মিশ্র প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে। কে বৈধ কাজী তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।
এব্যাপারে বাট্টজোড় ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার আবু সাইদ বলেন, আইন মন্ত্রণালয়ের নিয়োগের ভিত্তিতে আমি সম্পূর্ণ বৈধ। আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে একটি মহল। এর আগেও আমার স্বাক্ষর জাল করে বিভিন্ন অফিসে কাগজপত্র পাঠিয়ে আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করা হয়েছে।
সাইনবোর্ড ঝুলানো কাজী দাবিদার ইয়াকুব আলী শরীফ বলেন, হাইকোর্টের রিটের পরিপেক্ষিতে নিকাহ রেজিস্ট্রার পদে স্থিতিবস্থা আদেশ জারি করায় আমিই কাজী ।
অবিলম্বে বিষয়টি সুরাহা করতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন স্থানীয় সাধারণ মানুষ।