| |

পাগলা কুকুরের কামড়ে নারী-শিশুসহ আহত ২৯ : পিটুনিতে কুকুরের মৃত্যু

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানে পাগলা কুকুরের কামড়ে একই গ্রামের নারী-শিশুসহ ২৯জন আহত হয়েছে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী ওই কুকুরকে পিটিয়ে মেরেছে। আহতদের মহাখালীতে নেয়া হলেও গুরুতর আহত ৩জনকে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে। এরা হচ্ছেন, পিয়ারা বেগম (৩৮), সানি (১১) ও শামীমা (৮)।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা এনএনবিকে জানায়, গতকাল রোববার দুপুর সাড়ে ১২টায় মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার পানিয়ার চর (পাইন্নার চর) গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার শিকার আহত পিয়ারা বেগম ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসা গ্রহণকালে এনএনবিকে বলেন, তিনি সপরিবারে থাকেন সিরাজদিখান উপজেলার পানিয়ারচরের নিজগ্রামে। গতকাল বেলা সাড়ে ১২টায় তিনি তার বাড়িতে সাংসারিক কাজ করছিলেন। এসময় জানতে পারেন ভাসমান একটি পাগলা কুকুর তাদের গ্রামের বিভিন্ন বাড়িতে ঢুকে এমনকি রাস্তায় চলাচলকারী পথচারিদের কামড়ে ক্ষত-বিক্ষত করছে। এমন খবরে তিনিও তার বাড়ির সামনে সড়কে দাঁড়িয়েছিলেন। তখন দেখেন জনতার ধাওয়া খেয়ে কুকুরটি কয়েকটি শিশুকে কামড়ে জখম করেছে। এসময় তিনি ওই শিশুদের বাঁচাতে এগিয়ে গেলে পাগলা কুকুরটি তাকেও কামড়ে জখম করে। এসময় গ্রামবাসী কুকুরটি ধরতে চারদিক দিয়ে ঘিরে রেখে লাঠিসোঁটা নিয়ে এগিয়ে গেলে নারী-শিশুসহ একে একে ২৯জনকে কামড়ে রক্তাক্ত জখম করে। পরে মুহূর্তের মধ্যে এ খবর ছড়িয়ে পড়লে বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী লাঠিসোঁটা নিয়ে ধাওয়া দিয়ে ওই কুকুরটি আটক করে। একপর্যায়ে উত্তেজিত জনতা কুকুরটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলেছে। এরপর স্বজন-পরিবার তাদের ২৯জনকে পর্যায়ক্রমে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকের পরামর্শে বিকেলে তারা অনেকেই চিকিৎসা নিতে ঢাকার মহাখালী বক্ষ্যব্যাধি ও জলাতঙ্ক হাসপাতালে ছুটে আসেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক আহতদের দেহে পর্যায়ক্রমে জলাতঙ্ক প্রতিরোধক ইনজেকশন পুশ করেন। এতে তিনিসহ অন্তত ৫জন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে চিকিৎসকের পরামর্শে সন্ধ্যা ৬টায় ৩জন ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি হন। হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক মোজাম্মেল হক বিষয়টি নিশ্চিত করে এনএনবিকে বলেন, কুকুরের কামড়ে আহত নারী-শিশুসহ ৩জনকে ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। বিষয়টি তাৎক্ষণিক সিরাজদিখান থানা পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে।