| |

যে সংগঠন নিজেদের ঘাম,নিজেদের শ্রম, নিজেদের আর্থিক সফলতা দিয়ে ধীরে ধীরে গড়ে ওঠে সেই সংগঠন টিকে থাকে –আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর মো. মোখলেছুর রহমান বাদল

নজরুল ইসলাম খায়রুল: যে সংগঠন নিজেদের ঘাম,নিজেদের শ্রম, নিজেদের আর্থিক সফলতা দিয়ে ধীরে ধীরে গড়ে ওঠে সেই সংগঠন টিকে থাকে। সংগঠনে কেউ শ্রম দিতে পারেন,কেউ মেধা দিতে পারেন,কেউ আর্থিক ভাবে সাহায্য করতে পারেন। তবে নিজেদের মধ্যে সম্পর্ক কিন্তু অটুট থাকতে হবে। গতকাল শুক্রবার কিশোরগঞ্জ নেহাল পার্ক কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত পাকুন্দিয়া কল্যাণ সমিতির সাধারণ সভা, বৃত্তি প্রদান ও বনভোজন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর অতিরিক্ত এটর্নিজেনারেল অ্যাডভোকেট মো. মোখলেছুর রহমান বাদল এসব কথা বলেন । তিনি আরো বলেন, আমাদের মধ্যে বা এই সমিতির মধ্যে যাতে কোন বিভেদ বা ভুল বুঝা-বুঝি সৃষ্টি না হয়। ভুল বুঝা-বুঝি অনেক বড় ক্ষতি করে ফেলে। নিজেদের মধ্যে যাতে কোন ভুল বুঝা-বুঝি না হয়, যদি হয় তবে কমিটির সদস্যরা মন খোলা-খোলি করে সুন্দর ভাবে সমাধান করে ফেলবেন। সংগঠনের সভাপতি আহমেদ উল্লাহ’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পাকুন্দিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রেনু ও ঢাকাস্থ পাকুন্দিয়া সমিতির কোষাধক্ষ মো. কেরামত আলী। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পাকুন্দিয়া কল্যাণ সমিতির সহ-সভাপতি মিছবাহ উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো.হুমায়ুন, সহ-সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান চুন্নু, যুগ্ন সম্পাদক বিলকিস বেগম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম ভূইয়া, যুগ্ন সাংগঠনিক সম্পাদক মাঈনুল হক সেলিম, কোষাধক্ষ মো.হুমায়ুন কবীর, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আঃ আউয়াল, কার্যকরী সদস্য মজিবুর রহমান, সদস্য অধ্যাপক সিদ্দিক উল্লাহ, মফিজুল ইসলাম ও ফজলুর রহমান প্রমুখ। বক্তারা বৃত্তি প্রাপ্ত সমিতির সদস্যদের ছেলে-মেয়েদের উদ্দেশ্যে বলেন, শুধু শিক্ষা লাভ করলেই চলবে না, সুশিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে। যে শিক্ষার মধ্য দিয়ে জাতি গঠন করা যাবে, সমাজ গঠন করা যাবে। তারা আরো বলেন, আমরা চারিদিক চিন্তা করতে পারছিনা সমাজকে কি দেব ? এই ছেলে মেয়েরা সমাজকে কি দেবে ? এই ছেলে মেয়েরা সমাজের ভবিষ্যত, আগামী দিনের জাতি গঠনের জন্য দিক নির্দেশক। তাদের ভবিষ্যত গঠন করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব ও কর্তব্য। এই সমিতির মাধ্যমে একে অপরের সাথে নিবির সর্ম্পক গড়ে তুলবো, আমরা প্রত্যেকে আপন ভাই ভাই সম্পর্ক রেখে সামাজিক বন্ধন গড়ে তুলবো এবং এই সমাজকে বিনির্মাণের জন্য কাজ করবো এটাই আমাদের বা সমিতির অঙ্গীকার । আলোচনা শেষে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর অতিরিক্ত এটর্নিজেনারেল অ্যাডভোকেট মো. মোখলেছুর রহমান বাদল আগামী ২০১৬-২০১৭ দুই বছরের জন্য আহমেদ উল্লাহ সভাপতি ও অ্যাডভোকেট মো.হুমায়ুনকে সাধারণ সম্পাদক করে ২৭ সদস্যের নতুন কার্যকরী কমিটিসহ ১১ সদস্যের উপদেষ্টা কমিটি ঘোষণা করেন। পরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পাকুন্দিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রেনুর সৌজন্যে সমিতির সদস্যের মধ্যে নোমিস র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পাকুন্দিয়া সমিতির সকল সদস্যের পরিবার-পরিজন ও শিল্পীবৃন্দ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনায় ছিলেন পাকুন্দিয়া কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো.হুমায়ুন।