| |

এনায়েতপুরের হারুন মায়ের বসত ঘর পুড়িয়ে দিয়েছে

ফুলবাড়িয়া ব্যুরো অফিস : ফুলবাড়ীয়া উপজেলার এনায়েতপুর ইউনিয়নের দোলমা বেগুফা গ্রামে শনিবার (২১ মে) দুপুরে হারুন সহোদর মায়ের ঘর পুড়িয়ে দিয়েছে বলে জানা গেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দু’ বছর আগে ময়মননেছার স্বামী আবুল হোসেন মারা যায়। আবুল হোসেন মারা যাওয়ার সময় দু’ছেলে, পাঁচ মেয়ে রেখে যান। মারা যাওয়ার আগে আবুল হোসেন তার দু’ ছেলের মধ্যে জমি ভাগ করে দিয়ে যান। বেশি জমি দিয়ে যান হারুনকে, ২১শতক জমি দিয়ে যান উনার স্ত্রী ময়মননেছাকে। আবুল হোসেনের মৃত্যুর পর দু’ ছেলে হানিফা ও হারুন তাদের মা (ময়মননেছাকে) কোন ভরনপোষন করতেন না। পাঁচ মেয়ে এবং মেয়ের জামাই ময়মননেছা কে দেখাশোনা করতেন। আর হারুন প্রতিদিন তার মাকে চাপ দিতেন উনার নামে যে জায়গাটুকু রয়েছে তা তার নামে লিখে দিতে। এতে ময়মননেছা রাজি না হলে হারুন তার মায়ের ঘর পুড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। অবশেষে তাই হল- হারুন তার মায়ের সাথে কথাকাটাকাটির এক পর্যায় তার মায়ের একটি মাত্র ঘর আগুন লাগিয়ে পুড়ে দেয়।
হারুনের স্ত্রী রিনা বেগম বলেন, আমি মিথ্যা কথা বলব না আমার স্বামী কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ঘরে আগুন দেয়।
হারুনের মা ময়মননেছা জানান, যে সন্তান কে আমি দশ মাস গর্ভে রেখে ছিলাম, সেই সন্তান কয়েক বার আমাকে মারধর করে। কোন দিন আমি খেয়ে আছি, না খেয়ে আছি- দু’ ছেলে কোন দিন খবর নেয়নি। এ কথা বলে ময়মননেছা কান্নায় ভেংগে পড়েন। আবার পড়নের কাপড়ের আঁচল দিয়ে চোখের পানি মুছতে মুছতে বলেন, আমার স্বামীর দেয়া হাতের গয়না, আসবাবপত্র কোন কিছুই বের করতে পারিনি। আমি আপনাদের সকলের কাছে বিচার চাই।
এ বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ছড়িয়ে পড়লে প্রায় সকল সচেতন নাগরিক তীব্র ভাষায় প্রতিবাদ করে যাচ্ছেন এবং সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের জরুরি ও কঠিন হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন।