| |

ত্রিশালে ১১৪ ভোট কেন্দ্রের ৫৩ টিই ঝুকিপূর্ন

রফিকুল ইসলাম শামীমঃ আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ ৪ জুনের ৬ষ্ঠ ধাপের নির্বাচনে ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার ১২ ইউনিয়নের ১১৪ ভোট কেন্দ্রের ৫৩টি ভোট কেন্দ্রই ঝুকি পূর্ন। এর মাঝে ঝুকিপূর্ন কেন্দ্র রয়েছে ২৩টি ও অধিক ঝুকিপূর্ন কেন্দ্র রয়েছে ৩০ টি। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শাহাদাৎ হোসেন জানান উপজেলা হতে কেন্দ্র পর্যন্ত যে সকল ভোট কেন্দ্রের যোগাযোগ অবস্থা ভাল না ও অতীত নির্বাচনে নানা ঝামেলার সৃষ্টি হয়েছিল সেসব কেন্দ্র গুলোকে অধিক ঝুকিপূর্ন কেন্দ্র হিসাবে চিহ্রিত করা হয়েছে। ত্রিশাল উপজেলার যে সব কেন্দ্র অধিক ঝুকিপূর্ন তা হলো ঃ উপজেলার ধানীখোলা ইউনিয়নের সোনাখালী পাজলার চর উচ্চ বিদ্যালয়,কাটাখালী উমর আলী উচ্চ বিদ্যালয়,রোদ্রগাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় বৈলর ইউনিয়নের দেওয়ানীয়া বাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,কাঠাল ইউনিয়নের দরিকাঠাল উচ্চ বিদ্যালয়,ফাতেমা নগর উচ্চ বিদ্যালয়,বালিয়ারপাড় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,কানিহারী ইউনিয়নের থাপন আলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, কানিহারী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাঘাদারিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, রামপুর ইউনিয়নের বীররামপুর চরপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,দরিল্লা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাকচর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, রামপুর উচ্চ বিদ্যালয়, ত্রিশাল ইউনিয়নের ছলিমপুর পশ্চিমপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, চিকনা মনোহর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, হরিরামপুর ইউনিয়নের গোলাভিটা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, রায়েরগ্রাম নিঘুরকান্দা হাফিজিয়া মাদ্রাসা, রায়ের গ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, সাখুয়া ইউনিয়নের বাবুপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বালিপাড়া ইউনিয়নের কাজিগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাহাদুর পুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বালিপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, চরমাদাখালী নতুনচর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মঠবাড়ী ইউনিয়নের পোড়াবাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, অলহরী উসমানীয়া দাখিল মাদ্রাসা, বাদামিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, খাগাটি নতুন বাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, রায়মনি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মোক্ষপুর ইউনিয়নের জামতলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, সাবখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, লালপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাচাচড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু জাফর রিপন বলেন নির্বাচনের কেন্দ্র গুলো উপজেলার যেকোন প্রান্তেই হোক না কেন যোযাযোগ ব্যবস্থা যতই খারাপ হোক কেন্দ্র যত ঝুকিপূর্ন হোক উপজেলার সব কেন্দ্রেই এবার অবাধ শান্তিপূর্ন এবং ফেয়ার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠ ভাবে অনুষ্ঠানের জন্য ও নির্বাচনে বিশৃংলাকারীদের দমন করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।