| |

কিশোরগঞ্জ শোলাকিয়ায় সন্ত্রাসীদের হামলায় নিহত কনস্টেবল আনসারুল হকের গ্রামের বাড়ীতে চলছে শোকের মাতম

মদন সংবাদদাতাঃ বৃহস্পতিবার দেশের সর্ববৃহৎ ঈদের জামাত কিশোরগঞ্জের শোকাকিয়া ঈদগাহ মাঠে সন্ত্রসীদের হামলায় নিহত নেত্রকোণার মদন উপজেলার তিয়শ্রী ইউনিয়নের দৌলতপুরের কনস্টেবল আনসারুল হকের গ্রামের বাড়ীতে চলছে শোকের মাতম। জানা যায়, পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজের আগে কিশোরগঞ্জ শোলাকিয়া মাঠের আজিম উদ্দিন স্কুলের পাশে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তদের বোমা বিস্ফোরন ও দাঁড়ালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে কনস্টেবল আনসারুল হককে গুরুতর জখম করে। পরে ময়মনসিংহ সামরিক হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান। ময়মনসিংহ পুলিশ লাইনে ১ম জানাজা শেষে তার গ্রামের বাড়ী দৌলতপুর নিয়ে আসলে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারনা ঘটে। পরিবারের লোকজনসহ পুরো গ্রামের লোকজন লাশ দেখে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। পরে গ্রামের বাড়ীতে ২য় জানাজা শেষে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় পারিবারিক গোরস্থানে তার লাশ দাফন করা হয়। এ সময় পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহতের পরিবারের নিকট ১ লাখ ২০ হাজার টাকার চেক হস্তান্তর করা হয়। জেলা প্রশাসক ড. মুশফিকুর রহমান, পুলিশ সুপার জয়দেব চৌধুরী, কেন্দুয়া নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মুতাসিমুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খান মোহাম্মদ আবু নাসের, মদন থানার ওসি মাজেদুর রহমান, পুলিশ বিভাগের লোকজনসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। নিহত আনসারুল হক দৌলতপুর গ্রামের মৃত সিদ্দিকুর রহমান ও রাবেয়া খাতুনের ছেলে। তিনি তিয়শ্রী এন,এইচ,খান একাডেমী থেকে ২০০৩ সালে এস,এস,সি পাশ করেন। ২০০৬ সালে ২৪সেপ্টেম্বর রাজারবাগ পুলিশ লাইনে যোগদান করেন। সর্বশেষ কর্মস্থল ছিল কিশোরগঞ্জ পুলিশ লাইন। পরিবারে চার ভাইয়ের মধ্যে সে ছিল তৃতীয়। তিনিই ছিলেন পরিবারের একমাত্র উপার্জনশীল ব্যক্তি। তার অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের মাতম চলছে।