| |

গোপালপুর কলেজ জাতীয়করণ হওয়ায় আনন্দ র‌্যালি ও মিষ্টি বিতরণ

এ কিউ রাসেল : অবশেষে টাঙ্গাইলের ঐতিহ্যবাহি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গোপালপুর কলেজ জাতীয়করণ হওয়ায় ২৭ জুলাই বুধবার শহরে আনন্দ র‌্যালি ও মিষ্টি বিতরণ করেছে সর্বস্তরের গোপালপুরবাসি।
এ উপলক্ষে সকাল ১০টায় দিকে এক বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালি কলেজ প্রাঙ্গণ থেকে শুরু হয়ে পৌরশহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে নন্দনপুরস্থ বাসস্ট্যান্ড চত্বরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মধ্যে দিয়ে শেষ হয়।
সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, গোপালপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ও গোপালপুর কলেজ জাতীয়করণ বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক মো. ইউনুছ ইসলাম তালুকদার ঠা-ু, জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক তানভীর হাসান ছোট মনি, পৌর মেয়র রকিবুল হক ছানা, শহর আওয়ামী লীগ সভাপতি এস এম রফিকুল ইসলাম রফিক, গোপালপুর কলেজের অধ্যক্ষ আনোয়ারুল ইসলাম আকন্দ, প্রবীণ শিক্ষক অধ্যাপক বানীতোষ চক্রবর্তী, হেমনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রওশন খান আইয়ুব, ধোপাকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল হাই, আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি গিয়াস উদ্দীন, অধ্যাপক গোপাল চন্দ্র দাস, প্রভাষক মোজাম্মেল হোসেন, যুবলীগ নেতা আনোয়ারুল হক বুলবুল, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মঞ্জুরুল হক ফরিদ, ছাত্রলীগ কলেজ শাখার সভাপতি নূরন্নবী সোহাগ প্রমুখ।
বক্তারা, গোপালপুর কলেজ জাতীয়করণ করায় স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে গোপালপুরবাসীর পক্ষ থেকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।
প্রসঙ্গত, গত ৩০ জুন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে দেশের একশ’ ৯৯টি কলেজ জাতীয়করণের যে তালিকা প্রকাশ হয়, তাতে ১৯৬৮ সালে প্রতিষ্ঠিত ঐতিহ্যবাহি গোপালপুর কলেজ বাদ দিয়ে মেহেরুনেচ্ছা মহিলা কলেজের নাম অর্ন্তভূক্ত করা হয়। এ নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী ও কলেজ শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করে। প্রতিবাদে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও গোপালপুরের সর্বস্তরের জনগণের ব্যানারে পৌর শহরে লাগাতার বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ অবরোধ এবং গত ১৮ জুলাই শহরে অর্ধ-দিবস হরতাল কর্মসূচী পালনসহ প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে।
গত ২৪ জুলাই প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব-১ সাজ্জাদুল হাসান স্বাক্ষরিত পত্রে গোপালপুর কলেজকে জাতীয়করণের দ্রুত বাস্তবায়নের পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য শিক্ষা সচিবকে নির্দেশ দেন।।
পত্রে বলা হয় ’টাঙ্গাইল জেলাধীন গোপালপুর উপজেলার মেহেরুন্নেছা মহিলা কলেজ জাতীয়করণের সম্মতি অনিবার্য কারনে এতদ্বারা বাতিল করা হলো। বর্নিত কলেজের স্থলে গোপালপুর কলেজ জাতীয়করণের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সদয় সম্মতি প্রদান করেছেন’।