| |

ময়মনসিংহে রফিক উদ্দিন ভুইয়া স্টেডিয়ামেউদ্বোধনী বিপিএল খেলা গোল শূন্য ড্র

স্টাফ রিপোর্টার ঃ বাংলাদেশ প্রিমিয়ারলীগ(বিপিএল) এর চতুর্থ রাউন্ডের প্রথম খেলা ময়মনসিংহ রিফিক উদ্দিন ভূইয়া স্টেডিয়ামে চট্রগ্রাম আবাহনী লিঃ বনাম শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব লিঃ এর মধ্যে খেলাটি গোল শূন্য ড্র হয়েছে। গোলশূন্য এই ড্রয়ে পাওয়া ১ পয়েন্টে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রকে পেছনে ফেলে লিগে শীর্ষে উঠেছে স্বাধীনতা কাপের চ্যাম্পিয়ন চট্টগ্রাম আবাহনী। হ্যাটট্রিক লিগ শিরোপার মিশনে নামা শেখ জামালের এটি তৃতীয় ড্র। চার ম্যাচে ৬ পয়েন্ট তাদের। অন্যদিকে চার ম্যাচে দ্বিতীয় ড্রয়ে ৮ পয়েন্ট চট্টগ্রাম আবাহনীর। গতকাল বিকালে ময়মনসিংহের রফিক উদ্দিন ভুইয়ার স্টেডিয়ামে এ খেলা অনুষ্ঠিত হয়। বিকাল সাড়ে ৩টায় আনুষ্ঠানিকভাবে খেলা উদ্বোধন করেন ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান। এ সময় ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আরিফ খান জয়, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান বাবুল, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোজাম্মেল হক, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী, পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম, অতি: জেলা প্রশাসক (সার্বিক) হারুন অর রশিদ, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সেকেটারী সাজ্জাদ জাহান চৌধুরী শাহীন, জেলা ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি আবু নঈমসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ সাথে ছিলেন।
গতকালের উদ্বোধনী খেলার রেফারী ছিলেন মিজানুর রহমান তাকে সহযোগীতা করেন উসমান গনি ও মনিরুল ইসলাম। দীর্ঘ দিন পর নতুন করে নির্মিত রফিক উদ্দিন ভুইয়া স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত বিপিএল এর উ™ে¦াধনী দিনের খেলায় স্টেডিয়ামে দর্শক গ্যালারী কানায় কানায় পূর্ণ ছিল। ১৪ হাজার দর্শকের ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন এই স্টেডিয়ামে প্রায় ২০ হাজার দর্শক উপস্থিত হয়ে খেলা উপভোগ করেন। প্রচন্ড গরমের মধ্যেও দর্শকদের আনন্দ উচ্ছাসের কোন কমতি ছিলনা। বিপিএলকে কেন্দ্র করে খেলার মাঠসহ সারা শহরে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়। স্টেডিয়াম এলাকায় চারস্তরের নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তোলা হয়।
বিকাল ৪টায়  উদ্বোধনী ম্যাচ শুরু হয়। প্রথমার্ধ্যরে খেলায় চট্রগ্রাম আবাহনীর খেলোয়াড়রা বেশ কয়েকটি গোলের সুযোগ পেয়ে গোল করতে ব্যর্থ হয়। ২২তম মিনিটে ল্যান্ডিং ডারবোর ক্রসে এনামুল হক শরিফের শট দারুণ দক্ষতায় ফিরিয়ে দেন চট্টগ্রাম আবাহনীর গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলাম রানা। ৩৭তম মিনিটে নিজেদের মধ্যে বল দেওয়া নেওয়া করতে করতে ডান দিক দিয়ে আক্রমণে যাওয়া ল্যান্ডিং বক্সের মধ্যে গিয়ে তালগোল পাকিয়ে ফেলেন। পাল্টা আক্রমণে গোলের সুযোগ পায় চট্টগ্রামের দলটি। কিন্তু রুবেল মিয়া সুযোগটি কাজে লাগাতে পারেননি। খেলার ৬৭ মিনিটে  চট্টগ্রাম আবাহনীর ডি বক্সের বাইরে থেকে একটি ফ্রি কিক পেয়েও শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের খেলোয়াড় ওয়েটসান সরাসরি কিক করলে বল চলে যায় গোল কিপারের হাতে। ৬৬তম মিনিটে বক্সের একটু বাইরে ডারলিংটন ফাউলের শিকার হলে ফ্রি কিক পায় শেখ জামাল। ওয়েডসেন আনসেলমের শট ফিস্ট করে ফেরান রানা।
৭৯তম মিনিটে নিশ্চিত গোল থেকে বঞ্চিত হয় শেখ জামাল। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলায় উভয় দলের খেলোয়াড়রা বেশ কয়েকটি গোলের সুযোগ পেলেও তার গোল করতে ব্যর্থ হয়।  খেলার ৯০ মিনিটেও গোল না হলেও অতিরিক্ত আরো ৫ মিনিট ইজুরী টাইমের খেলাতেও কোন দলই গোল করতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত গোলের নাগাল পায়নি কোনো দলই।
আজ শনিবার ৬ আগস্ট বিকাল ৪টায় ময়মনসিংহ রফিক উদ্দিন ভূইয়া স্টেডিয়ামে ২য় দিনের খেলায় সকার ক্লাব ফেনী বনাম শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র লিমিটেড এর মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে।