| |

তুচ্ছ ঘটনায় শহরের চরপাড়া নয়াপড়ায় দাঙ্গাবাজ যমজ সহোদরের হাতে খুন হলো তরুণ জনম

স্টাফ রিপোর্টার ঃ গত শুক্রবার (১২ আগস্ট) রাত প্রায় ৮ টায় শহরের চরপাড়া নয়াপড়ায় (ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ গেটের পশ্চিমে) দাঙ্গাবাজ যমজ দু’ভাই আকিব (২০) ও রাবিক (২০) এর উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত ও রামদায়ের কোপে খুন হয়েছে স্থানীয় বাসিন্দা ও হাসপাতাল চত্বরে পানদোকানী লিটন এর তরুণ পুত্র জনম (১৭/১৮)। তার মা হাসপাতালের নবজাত শিশু ওয়ার্ডের ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী। এলাকাবাসী জানায়, জনম ওই সময়ে এলাকার পুলপাড়ে রাস্তার পাশে বসা ছিল। তখন এলাকার নতুন (কয়েক বছরের) বাসিন্দা ত্রিশাল উপজেলার ধানীখোলা ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান এর যমজ পুত্র আবিক ও রাকিব মটর সাইকেলে তাদের বহুতল বাসা মমতাজ ভিলায় ফিরছিল। পুলপাড় এসেই মটর সাইকেলটি থামিয়ে তার তীর্যক লাইটটি জনমের চোখে ফেলে। এতে জনম কড়া প্রতিবাদ করে। প্রতিবাদে দু’ভাই ক্ষিপ্ত হয়ে বাসায় চলে যায় এবং রামদা ও ছুরি নিয়ে তৎক্ষনাৎ ফিরে এসে জনমের ওপর হামলা চালায়। ওদের উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত ও দায়ের কোপে জনম রক্তাক্ত মুমুর্ষু হয়ে পড়ে। স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে তাকে মচিম হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করলে কর্তব্যরত ডাক্তারগন তার অবস্থা গুরুতর বুঝে ঢাকায় রেফার করেন। ঢাকায় নেয়ার পর জনম মারা যায়। জনমের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী খুনী যমজ দু’ভাইকে ধরতে গতকাল শনিবার (১৩ আগস্ট) সকালে তাদের বাসা ঘেরাও করে। কিন্তু এর আগেই মা, বোন সহ ওরা পালিয়ে যায়। বিক্ষুব্ধরা বাসা ভাংচুরের উদ্যোগ নিলে বাসার দ্বিতল ও তিনতলে ছাত্রীমেস থাকায় এলাকার সচেতন সাধারণরা বিক্ষুব্ধদের আপাতত থামান। খবর পেয়ে কোতোয়ালী মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছেন এবং জনতার রোষানল অবস্থা বুঝে ছাত্রীদের দ্রুত মেস ছাড়ার পরামর্শ দেন। অপরদিকে নিহত জনম-এর লাশ এদিনেই বিকেলে ঢাকা থেকে ময়মনসিংহে চরপাড়া নয়াপাড়ায় পৌছলে সারা এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। নিহতের পরিবার ও স্বজনদের মাঝে কান্নার রোল পড়ে যায়। তাদের আহাজারীতে বাতাস ভারী হয়ে ওঠে। শনিবার দিনগত রাতেই নিহতের নামাজে জানাযা ও দাফন সম্পন্ন হয়। রাতে রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিলো। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।