| |

কিশোরগঞ্জে দরিদ্রতা রুখতে পারেনি আনিসের জিপিএ-৫

নজরুল ইসলাম খায়রুল : দরিদ্রতা রুখতে পারেনি আনিসের জিপিএ-৫। মনের অদম্য সাহস আর অধ্যবসায়ের ফলে এ সাফল্য পেয়েছে সে। জিপিএ-৫ প্রাপ্ত মো, আনিসুর রহমান আনিস কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার টান সিদলা গ্রামের হতদরিদ্র মাটি কাটার শ্রমিক আফাজ উদ্দিনের ছেলে । এ বছর এইচ. এস. সি পরীক্ষায় ময়মনসিংহ সৈয়দ নজরুল ইসলাম কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর আগেও সে হোসেনপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস.এস.সি পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে, পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণীতে বৃত্তি পেয়ে কৃতিত্বের সাক্ষর রেখেছে । পাঁচ ভাই-বোনদের মধ্যে তিনবোন বিবাহিত। বড় ভাই স্থানীয় উপজেলায় একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের অস্থায়ী ভাবে অফিস সহায়কের কাজ করছেন। ডাচ-বাংলা ব্যাংকের বৃত্তি থেকে প্রাপ্ত অর্থ এবং টিউশনি করে লেখা-পড়ার খরচ জোগার করছে আনিস। বর্তমানে বাবার শারীরিক অসুস্থতার কারণে তিনি মাটি কাটতে পারেন না। ভাইয়ের সামান্য বেতনে কোন মতে সংসার চলে তাদের। আনিস দুটি পাবলিক পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেলেও তার মুখে হাসি নেই। হতাশা আর দুশ্চিন্তায় দিন কাটছে তার। আনিসের মা আম্বিয়া খাতুন কেঁদে বলেন, আমার ছেলে উভয় পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে, কিন্তু অর্থের অভাবে তার উজ্জ্বল ভবিষ্যত কি থমকে যাবে ? দেশবাসির কাছে এমনটাই প্রশ্ন রাখলেন তিনি ।