| |

বকশীগঞ্জে ঈদ উপলক্ষে যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়া আদায়ে নৈরাজ্যের অভিযোগ!

বকশীগঞ্জ প্রতিনিধি : ঈদের আনন্দ উপভোগ শেষে কর্মস্থলে ফেরা মানুষদের জিম্মি করে বকশীগঞ্জে বাস পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করার অভিযোগ উঠেছে। ফলে ঈদের পর ফেরা কর্মজীবী মানুষগুলো কর্মস্থলে পৌঁছতে চরম হয়রানির শিকার হচ্ছেন। এযেন এক নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।
জানাগেছে, বকশীগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী ৫০টি বাস প্রতিদিন চলাচল করে। জনপ্রতি সাড়ে তিন শত টাকায় ভাড়ায় চলছিল। ঈদের পর এসব বাসে জনপ্রতি দ্বিগুণ অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ রয়েছে। প্রতিবাদ করেও কোন কাজ হচ্ছেনা। ফলে অসহায় যাত্রীরা বাধ্য হয়ে বেশী ভাড়ায় দিয়ে ঢাকায় যাচ্ছেন। এরপরও প্রয়োজনীয় সংখ্যক পরিবহন পাওয়া যাচ্ছেনা।
যাত্রীদের অভিযোগে জানাযায়, বাস মালিক সমিতির নেতারা মনগড়াভাবে ভাড়া বৃদ্ধি করেছে। এতে করে অতিরিক্ত টাকা দিয়ে যাত্রীদের যাতায়াত করতে হচ্ছে। একাধিক যাত্রী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, কোন দ্বায়বদ্ধতা না থাকায় পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা ইচ্ছা মাফিক অতিরিক্তি ভাড়া আদায় করছেন। তারা লাভবান হতে যা খুশি তাই করছেন। পরিবহনের এসব অরাজকতা দেখে মনে হয় দেখার কেউ নেই।
এছাড়া বকশীগঞ্জ থেকে প্রায় ৫ শতাধিক সিএনজি চালিত অটোরিক্সা চলাচল করে। বকশীগঞ্জ থেকে শেরপুর দুরত্ব ২৬ কিলোমিটার। ঈদের আগে শেরপুর নির্ধারিত ভাড়া ছিল ৬০ টাকা। ঈদের পরে ভাড়া আদায় করছে জনপ্রতি ১০০ টাকা ১৩০ টাকা। সিএনজি চালকদের অভিযোগে জানায়, গাড়ীর তুলনায় যাত্রী বেশি। এছাড়া গ্যাস নিতে ৪/৫ ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। তাই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে বাড়তি ভাড়া নেয়া হচ্ছে।
এব্যাপারে বকশীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মহব্বত কবীর জানান, যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্তি ভাড়া নেয়ার বিষয়ে কেউ লিখিত অভিযোগ দিলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।