| |

মিথ্যা অভিযোগ এনে দ্রুত বিচার আইনে মামলা করে হয়রানির অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার : ময়মনসিংহের ফুলপুর টংগীরঘাট গ্রামে জমি সংক্রান্ত মামলার বাদীকে ঘায়েল করতে বিবাদীরা মিথ্যা অভিযোগ এনে দ্রুত বিচার আইনে মামলা করে হয়রানির অভিযোগ করেছেন বেরুয়া সরকারী প্রাইমারি স্কুলের সহকারী শিক্ষক মোবারক হোসেন ও তার পরিবার। স্কুল শিক্ষক মোবারক হোসেন জানান, তিনি বাদী গত ১০-০৬-২০১৪ ইং তারিখে জমি নিয়ে বিরোধের কারণে প্রতিবেশী আঃ জলিল ও আঃ কাদের গংদের বিরুদ্ধে আদালতে একটি মামলা  করেন। যার মামলা নং ১৫৫ ।  মামলায় নিশ্চিত হেরে যাওয়ার আশংকায় বিবাদী আঃ জলিলের ছেলে আবদুল্লাহ আল মামুন বাদী হয়ে স্কুল শিক্ষক মোবারক হোসেন, তার ছোট ভাই ঠাকুরগাঁয়ে হোমল্যান্ড জীবনবীমা কোম্পানী কর্মরত ফখর উদ্দিন ও টাংগাইলে কর্মরত মসজিদের ইমাম আঃ সোবহানসহ তার পরিবারের ১৪ জনের বিরুদ্ধে গত ২১ জুলাই‘১৬ ময়মনসিংহ সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতে দ্রুত বিচার আইনে ১০৪/১৬ নং অভিযোগ দায়ের করে।  এই মামলার সাক্ষী করা হয় মামুনের বাবা, চাচা, দাদাসহ  পরিবারের লোকজদেরকে। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি ফুলপুর থানা পুলিশকে তদন্ত করতে নির্দেশ দিলে তদন্তকারী কর্মকর্তা ফুলপুর থানা এসআই জালাল উদ্দিন বাদী মামুনের স্বজনদের সাক্ষী নিয়ে আদালতে  তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। যা সঠিক তদন্ত হয়নি। মামুন মামলা উল্লেখ করেছেন গত  ১৮ জুলাই’১৬ সকাল ১০ টায় আসামীগণ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র সহ জোরামলে বাড়িতে প্রবেশ করে চাঁদা দাবী করে। ভয়ভীতি দেখিযে ঘরের ভেড়া ভাংচুর করে এবং আসবাবপত্র ভাংচুর করে নগদ ৫০ হাজার টাকা ছিনিয়ে যায়। স্কুল শিক্ষক মোবারক হোসেন জানান, তিনি ঘটনার সময় স্কুলে ছিলেন। তার ছোট ভাই ফখর উদ্দিন কর্মস্থল ঠাকুরগাও ছিল, মসজিদের ইমাম মাওলানা আঃ সোবহান টাংগাইল সদর আকুর ঠাকুরপাড়া  বাইতুল ছালা জামে মসজিদে অবস্থান করছিলেন। তিনি মামলাটি সম্পূর্ণ মিথ্যা বলে তিনি উল্লেখ করেন। তিনি ন্যায় বিচারের স্বার্থে পুনরায় নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনের জন্য সংশ্লিষ্টদের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন।