| |

গৌরীপুরে বাল্য বিয়ের ঘটনায় জেল- জরিমানা

গৌরীপুর  প্রতিনিধি ঃ ময়মনসিংহের গৌরীপুরে পৃথক দুটি বাল্যবিয়ে ঠেকাতে ভ্রাম্যমাণ আদালত কনের পিতামাতাকে জেল-জরিমানা করেছে। শনিবার (১২ নভেম্বর/১৬) ভোরে অচিন্তপুর ইউনিয়নের সুলতান উদ্দিনের কন্যা ¯িœগ্ধা আক্তার শিমুর সাথে ইয়ারপুর গ্রামের আব্দুস ছালামের পুত্র মামুনের বাল্য বিয়ের প্রদানের দায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মর্জিনা আক্তারের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। আদালত কনের পিতাকে কারাদ- ও মাতাকে আর্থিক দ- প্রদান করেন। বাল্য বিয়ে প্রতিরোধ অভিযান চালাতে গিয়ে ইউএনও মর্জিনা আক্তারের বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার দু’রাতই নির্ঘুম কাটাতে হয়।
ভ্রাম্যমান আদালতের কাছে কনের পিতা সুলতান উদ্দিন স্বীকার করেন গ্রামের লোকজন ও আত্মীয় স্বজনের উপস্থিতিতে মসজিদের ইমাম দিয়ে ধর্মীয়মতে তার কন্যার বাল্য বিয়ে সম্পন্ন করেন। সে অচিন্তপুর ড. এম.আর করিম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী। জন্ম তারিখ অনুযায়ী ১৮বছর পূর্ণ না হওয়ায় কোন কাজী রাস্ট্রীয় নিবন্ধন করতে আসেনি। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা কালে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন গৌরীপুর শাখার সহসভাপতি সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম মিন্টু, সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক মোঃ রইছ উদ্দিন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ তাজুল ইসলাম, গৌরীপুর থানার সাব-ইন্সপেক্টর আব্দুল গনি, অচিন্তপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আব্দুর রউফ। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মর্জিনা আক্তার সাক্ষ্য প্রমাণ ও স্বীকারোক্তিতে কনের মা হোসনে আরা (৪৫) কে এক হাজার টাকা জরিমানা এবং কনের বাবা সুলতান উদ্দিন (৫৫) কে ১৫দিনের কারাদ-ের আদেশ দেন। একই সাথে বিয়ে সম্পাদনকারী ইমাম ও বরের বাবা ইয়ারপুর গ্রামের আব্দুস ছালাম, ঘটক ও বিয়েতে সহায়তাকারীদের বিরুদ্ধেও প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের আদেশ দেন।
অপরদিকে উপজেলার রামগোপালপুর ইউনিয়নের গোপীনাথপুর গ্রামে ৭ম শ্রেণির ছাত্রী মরিয়ম আক্তারের বাল্য বিয়ের ঠেকাতে সুসজ্জিত বিয়ে বাড়িতে শুক্রবার (১১ নভেম্বর/১৬) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মর্জিনা আক্তারের নেতৃত্বে পরিচালিত  ভ্রাম্যমাণ আদালত কনের বাবা আব্দুল মান্নানকে এক হাজার টাকা জরিমানা করেন। এ সময় কনের বাবা-মা অঙ্গিকার করে ১৮বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত তিনি মেয়েকে বিয়ে দিবেন না।