| |

আমার যা কিছু সব বাংলার মানুষের জন্য : শেখ হাসিনা

ডেস্ক নিউজঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমি, আমার অর্জন, আমার পুরস্কার এবং আমি যা কিছু পাই সবকিছুই বাংলার মানুষের জন্য। কেননা এই বাংলার মানুষের মাঝেই আমি আমার বাবা-মাকে খুঁজে পাই।
জাতিসংঘ সফরে ‘চ্যাম্পিয়ান্স অফ দি আর্থ’ পুরস্কার নিয়ে ফেরার পর গতকাল সোমবার ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এই অঙ্গীকার করেন তিনি। সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় এ সম্বর্ধনার আয়োজন করা হয়।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি যখন ১৯৮১ সালের ১৭ মে এই বাংলাদেশে ফিরে এলাম, তখন হাজার হাজার মানুষ এসেছিল। কিন্তু তখন আমি পাইনি আমার বাবা-মা, ভাইবোনকে। শুধু পেয়েছিলাম এই বাংলার মানুষকে। আমার পিতা তথা জাতির পিতা এই দেশকে স্বাধীন করেছিলেন, এই দেশকে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত করার জন্য। আমি আমার বাবার সেই অসম্পূর্ণ স্বপ্নকে বাস্তয়নের অঙ্গীকার করেছি। আর এ লক্ষ্যেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।
তিনি আরো বলেন, আমার এখন একটাই কামনা-বাসনা এই বাংলার মানুষ যেন দারিদ্র্য থেকে মুক্তি পেয়ে উন্নত জীবন লাভ করে। কেননা যে জাতি নিজের রক্ত দিয়ে এই দেশকে স্বাধীন করতে পারে, সেই জাতি কোনো দিন ক্ষুধা নিপড়ন ও দারিদ্র্যতার মধ্যে থাকতে পারে না।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, উন্নয়ন করতে হলে তার প্রভাব পরিবেশের ওপর পড়ে। উন্নয়ন করতে হলে ভারসাম্য করতে হবে। সে লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।
তিনি বলেন, যে উন্নয়নের কর্মসূচি আমরা হাতে নিয়েছি, তা যেন বাস্তবায়ন করে আমার এই ভূ-খণ্ড বাংলাদেশকে যেন আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটা উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে পরিণত করতে পারি, মানুষ যেন সুন্দরভাবে বাঁচতে পারে।
শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের এই ভূখণ্ড, আমার প্রতিজ্ঞা হল, সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তুলব। আজকে যারা শিশু তাদের জন্য বাসযোগ্য একটা দেশ করে দিয়ে যাব।
উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনার ক্ষেত্রেও পরিবেশ রক্ষার উপর জোর দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলা করে, পরিবেশ রক্ষায় যা যা করার করে যাচ্ছি। কারও মুখাপেক্ষী না হয়ে নিজেরা নিজেদের না হয়ে পরিবেশ রক্ষার কার্যক্রম গ্রহণ করেছি।
তিনি বলেন, আমাদের দেশের পরিবেশ রক্ষা করতে হবে, জীববৈচিত্র্য রক্ষা করতে হবে এবং মানুষের উন্নয়ন করতে হবে। কারও মুখাপেক্ষী না হয়ে যেন নিজেরা নিজেদের পরিবেশ রক্ষার কার্যক্রম গ্রহণ করি।
‘উদয়ের পথে শুনি কার বাণী/ ভয় নাই, ভয় নাই ওনে ভয় নাই/ নিঃশেষে প্রাণ যে করিবে দান ক্ষয় নাই তার ক্ষয় নাই,’ আবৃত্তি করে বক্তব্য শেষ করেন শেখ হাসিনা।
অনুষ্ঠানে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হকও বক্তব্য রাখেন।
জাতিসংঘের পরিবেশবিষয়ক সর্বোচ্চ সম্মাননা ‘চ্যাম্পিয়নস অব দ্য আর্থ’ এবং ‘আইসিটি টেকসই উন্নয়ন পুরস্কার’ দেশের মানুষকে উৎসর্গ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ অনেক কিছুই অর্জন করেছে। আজকের সব অর্জন বাংলার জনগণকে দিয়ে দিলাম। বাংলার মানুষের জন্য আমি যেকোনো ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত। এই বিজয় বাঙালি জাতির। বাঙালি বিশ্ব সভায় যেন মর্যাদার আসন পায় সেটাই আমাদের লক্ষ্য। আজকের পুরস্কার বাংলার জনগণকে উৎসর্গ করলাম।’