| |

কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উদ্যাপিত

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস ২০১৬ উদ্যাপন উপলক্ষে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আজ ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৬ তারিখ বুধবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতা স্তম্ভে পুষ্পমাল্য অর্পণের মধ্য দিয়ে কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহীত উল আলম। এরপর যথাক্রমে মাননীয় ট্রেজারার প্রফেসর এ এম এম শামসুর রহমান, শিক্ষক সমিতি, কর্মকর্তা পরিষদ, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, হলের প্রভোস্ট, বিভাগীয় প্রধানগণ, ছাত্র-ছাত্রী ও বিভিন্ন সামাজিক-রাজনৈতিক সংগঠন।
পরে গাহি সাম্যের গান মঞ্চে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহীত উল আলম বক্তব্য রাখেন। প্রধান অতিথি বলেন, ‘১৬ ডিসেম্বর আমাদের বিজয় অর্জিত হলেও বিজয়ের আনন্দের সাথে দুঃখ যোগ হয় রায়েরবাজার বুদ্ধিজীবীদের একে একে লাশ পাওয়ার খবরে। বাংলা সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ইতিহাসকে যারা ভালোবেসেছেন এমন বুদ্ধিজীবীদের ধরে এনে এখানে হত্যা করা হয়। অন্যান্য ভাষা ও সংস্কৃতির চেয়ে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি যেন পিছিয়ে পড়ে তার জন্যই এই হত্যাকা- ঘটায় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী।’ তিনি আরও বলেন, ‘কোন স্বাধীন জাতি তাদের ভাষার অবমাননা মেনে নিতে পারে না। আর কোন বিদেশি আমাদের দেশে এসে আমাদের দেশবাসীকেই হত্যা করবে এটা আমরা কোনভাবেই মেনে নিতে পারি না।’ সমাজ তথা দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে আমাদের প্রত্যেকের ভূমিকা রাখাই আজকের দিনের অঙ্গীকার বলে উল্লেখ করেন মাননীয় প্রধান অতিথি।
সভাপতি হিসেবে বক্তব্য রাখেন শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উদ্যাপন কমিটির আহ্বায়ক ও মাননীয় ট্রেজারার প্রফেসর এ এম এম শামসুর রহমান। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় বুদ্ধিজীবী তৈরির কারখানা। এখানে বিভিন্ন বিষয়ে গবেষণার অনেক সুযোগ রয়েছে এবং গবেষণা হচ্ছেও। তবে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ে আরও বেশি গবেষণা হওয়া প্রয়োজন।’
বিশেষ অতিথি হিসেবে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো: নজরুল ইসলাম এবং কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মুশাররাত শবনম আলোচনা করেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উদ্যাপন কমিটির সদস্য সচিব মাসুম হাওলাদার। সাব্বির আহমেদ এবং আপেল মাহমুদ শিক্ষার্থীদের মধ্য হতে বক্তব্য রাখেন। আলোচনায় শহীদ বুদ্ধিজীবীদের শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে তাঁদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন থিয়েটার এন্ড পারফরমেন্স স্টাডিজ বিভাগের প্রভাষক মো: মাজহারুল হোসেন তোকদার।