| |

উপজেলার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের এক লাখ শিক্ষার্থীকে টিফিন বক্স দেওয়া হচ্ছে — উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা

আঞ্চলিক প্রতিনিধি  : দীর্ঘ সময় বিদ্যালয়ে অবস্থানের জন্য শিক্ষার্থীরা যাতে ক্ষুদায় কষ্ট না পায় সে ভালুকা উপজেলার প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক স্তরের প্রত্যেক শিক্ষার্থীর হাতে একটি করে টিফিন বক্স পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে উল্লেখ করে ভালুকা উপজেলা চেয়ারম্যা গোলাম মোস্তফা বলেছেন, প্রতিটি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীকে দীর্ঘক্ষন বিদ্যালয়ে অবস্থান করে ক্লাশ করতে হয়। বিদ্যালয়ের টিফিন আওয়ারে অনেক শিক্ষার্থী টিফিন গ্রহন না করায় এক সময় তারা দুর্বল হয়ে ঝিমিয়ে পড়ে। ফলে ক্লাশে তাদের মন বসেনা। আর তাতে ব্যহত হয় তার শিক্ষা। কাজেই, উপজেলার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের প্রায় এক লাখ শিক্ষার্থীকে একটি করে টিফিন বক্স দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে আসার সময় বাড়ি থেকে ওই টিফিন বক্সে করে টিফিন নিয়ে আসবে এবং বিদ্যালয়ের টিফিন আওয়ারে ওই বক্সের টিফিন তারা খাবে। এতে পুনরায় তাদের শরীরে এ্যানার্জি ফিরে আসবে এবং পুনরায় তারা আগের মত ক্লাশে মনোযোগি হয়ে উঠবে। গতকাল মঙ্গলবার উপজেলার উপজেলার ডাকাতিয়া ইউনিয়নের ১, ২ ও ৩নম্বর ওয়ার্ডের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার শিক্ষার্থীদের হাতে টিফিন বক্স তুলে দেওয়ার সময় তিনি এসব কথা বলেন। জাতি শিক্ষত হলেই দেশ উন্নত হবে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি হলে মানুষ বিভিন্নভাবে নিজেই তার আর্থ সামাজিক অবস্থার পরিবর্তন ঘটাতে পারে। সে লক্ষে এলাকার কাঁচা রাস্তাগুলো দ্রুত পাকা করা হচ্ছে। দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ক্ষমতা ক্ষনস্থায়ী। কাজেই, সুখে, দু:খে মানুষের পাশে থেকে তাদের কল্যাণে কাজ করতে হবে। মনে রাখতে হবে, আমাদের কোন নেতা-কর্মীর কোন আচরণের জন্য যাতে মানুষের মনে কষ্ট না পায়।
ডাকাতিয়া ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে শিক্ষার্থীদের মাঝে টিফিন বক্স বিতরণ উপলক্ষ্যে স্থানীয় ডাকাতিয়া শহীদ মুক্তিযোদ্ধা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত এক সমাবেশে ইউপি চেয়ারম্যার আলহাজ¦ শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তৃতা করেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল আহসান তালুকদার, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সফিকুল ইসলাম, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহীদুজ্জামান, আশরাফ উদ্দিন বিএসসি, অধ্যাপক আতাউর রহমান, নূরে আলম জিকু, প্রধান শিক্ষক নূরুল ইসলাম, তোফায়ের হোসেন, বিল্লাল হোসেন, আবদুল্যাহ আল মামুন, আলামীন মন্ডল।
সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল আহসান বলেন, আগামী এক মাসের মধ্যে ভালুকার প্রতিটি শিক্ষার্থীর হাতে টিফিন ব্স পৌঁছে দেওয়া হবে। বিদ্যালয় চলাকালে কোন শিক্ষার্থীকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বাইরে ঘুরা ফেরা করতে দেখা গেলে বা কোন আড্ডায় পাওয়া গেলে তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। টাকার অভাবে যাতে কোন শিক্ষার্থীর লেখা পড়া যাতে বন্ধ হয়ে না যায় সে বিষয়টি আমরা দেখবো।
এর আগে উপজেলার ৩২লাখ টাকা ব্যয়ে রাজৈ ইউনিয়নের কুল্লাব গ্রামের শামছুদ্দিনের বাড়ির পাশের এইচবিবি হতে শহীদ স্মৃতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পর্যন্ত রাস্তা ও ১০লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলার ডাকাতিয়া ইউনিয়নের ডাকাতিয়া বাজার-হাজী বিল্লাল হোসেনের (বীর মুক্তিযোদ্ধা) বাড়ির পাশ দিয়ে আড়াইপাড়া পাকা রাস্তা পর্যন্ত রাস্তা এইচবিবি দ্বারা উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করেন।