| |

ভালুকায় নদীতে বাঁধ দিয়ে জমি দখল

নিজস্ব সংবাদদাতা, : ভালুকার উথুরা ইউনিয়নের কৈয়াদী গ্রামে নেওড়া নদীতে বাঁধ দিয়ে সরকারী জমি দখল করে পুকুর সহ ফসলের ক্ষেত তৈরী করেছেন ওই গ্রামের সাহজাহান সানু ও তার দুই ছেলে। এলাকাবাসীর অভিযোগ ভালুকার কৈয়াদী গ্রামের জনৈক সাহজাহান সানু ও তার দুই ছেলে সাখাওয়াত হোসেন ও ছানোয়ার হোসেন সরকারী বন ও সরকারের ১ নং খতিয়ানের জমি দখল করে ওই এলাকায় একাধিপত্য বিস্তার করেছেন। এলাকাবাসীর বাধা ও প্রতিবাদের মুখে তারা নেওড়া নদীতে বাঁদ দিয়ে সেটিও দখলে নিয়ে নদীর রুপ পাল্টে ফসলি জমিতে রুপান্তর করছেন। প্রতিবাদ কারীদের মারপিট ও মামলার ভয়ভীতি দেখিয়ে দুরে সরিয়ে নির্ভিগ্নে কাজ করে চলেছেন তারা। আব্দুল হামিদ (৫৫) নামে এক কৃষক জানায় বাঁধ দেওয়ার সময় বাধা দেয়ায় তাকে মারপিট ও মামলার হুমকি দিয়েছে সানু ও তার ছেলেরা। বাঁধ এলাকায় নদীতে মাছ ধরতে আসা দেবরাজ গ্রামের আব্দুল কদ্দুছ (৬৫) ও আব্দুল বাছেদ (৬০) দুই কৃষক জানান তারা বাপ দাদার আমল থেকে এই নদীর পানি দিয়ে বোর আবাদ সহ গৃহস্থালী কাজ কর্ম ও মাছের চাহিদা মিটিয়ে আসছেন। সম্প্রতি কৈয়াদী গ্রামের সানু ও তার দুই ছেলে নদীতে প্রায় ১২/১৩ ফুট প্রস্থ একটি বাঁধ দিয়ে মাঝখানে পুকুরের মত বানিয়েছেন। পুকুরের ভাটিতে নদীর পাহাড় কেটে মাটি ফেলে নদী ভরাট করে ফসলের জমি বানাচ্ছেন। তারা বাধা দেওয়ায় তাদেরকে মামলার হুমকি দিয়েছে। বাঁধের ছবিতোলার সময় সাংবাদিকদের উপস্থিতি টেরপেয়ে বাঁধের কাছে উপস্থিত হন দুই ভাই সাখাওয়াত ও ছানোয়ার। তারা জানান নদীর দুই পাড়েই এক নং খতিয়ানের সরকারী খাস জমি তা সত্বেও তারাই ভোগ দখলকার। সাখাওয়াত বলেন“ এইযে দেখছেন এসব জমির সবই খাস ও বন বিভাগের, দখল সূত্রে মালিক হিসাবে আমরা এসব জমিতে হালচাষ করি”। নদীতে বাঁধ দেয়া ও ভরাট করার বিষয়ে তারা জানান উজানে এ রকম বাঁধ অনেকেই দিয়েছে শুধু তাদের বেলায় অভিযোগ। তারা এও বলেন তাদের এক পাশের জমির উপর দিয়ে বিকল্প খাল কেটে দিয়েছেন পানি যাওয়ার জন্য।
এ ব্যপারে স্থানীয় লোকজন জানায় সাহজাহান সানু খলিলের বাজার নামক একটি গ্রাম্য বাজারের সভাপতি। ছেলে ছানোয়ার বন কাঠে তৈরী খাট পালংয়ের ব্যবসা করেন আরেক ছেলে সাখাওয়াত গাড়ীর ব্যবসার সাথে জড়িত। নদী ভরাট করার ব্যপারে উথুরা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ইছাহাক আলীর কাছে জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন নদীতে বাঁধ দিয়ে তারা সরকারী আইন ভঙ্গ করে জগন্য অপরাধ করেছেন এ বিষয়টি প্রতিবেদন আকারে উর্ধ্বতন কর্র্তৃপক্ষকে শীঘ্রই জানাবেন।