| |

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব ধর্মকে সমান মর্যাদা দিয়ে থাকেন- গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার ঃ গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহম্মেদ এমপি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সব সময় বলে থাকেন এদেশে ধর্ম যার যার উৎসব সবার। ধর্মীয় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ বাংলাদেশ। এখানে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাই মিলেমিশে বসবাস করছে। প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, সরকার সব ধর্মের অধিকার নিশ্চিত করেছে। এখানে কাউকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে দেয়া হবেনা। জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সব ধর্মকে সমান মর্যাদা দিয়ে থাকেন। তিনি আরো বলেন একটি সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করতে চায়। শেখ হাসিনার সরকার তা কোনভাবে মেনে নেবে না। সরকার সবার ধর্ম পালন নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর। এেেত্র সরকার জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তার ব্যক্তিগত উদ্যোগে মন্দির মসজিদ নির্মানে ট্রাষ্ট গঠন করে দিয়েছেন। তারই ধারাবাহিকতায় হিন্দু ধর্মীয় কল্যান ট্রাষ্টের উদ্যোগে রাজা বিজয় সিং দুরদুুরিয়া শিব মন্দির নির্মানে ২৫ ল টাকা অনুদান দিয়েছেন। শেখ হাসিনার সরকার জাতি ধর্ম বর্ন নির্বিশেষে সবার ধর্ম পালনে অঙ্গীকারবদ্ধ। আপনারা নিরাপদে ধর্ম পালন করুন, আমরা আপনাদের সব সময় সহায়তা দিয়ে যাবো। গতকাল শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ময়মনসিংহ নগরীর পাটগুদাম ব্রীজ মোড় সংলগ্ন রাজা বিজয় সিং দুরদুরিয়া শিব মন্দির নির্মান কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উদ্বোধনী আনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ময়মনসিংহ সিটি করর্পোরেশনের মেয়র মো: ইকরামুল হক টিটু বলেন, এই মন্দির নিয়ে অনেক চক্রান্ত হয়েছে। আমি সে সময় আপনাদের পাশে ছিলাম। এখনো পাশে আছি। বর্তমান সরকার সাম্প্রদায়িক শক্তিকে প্রতিহত করতে সর্বদা প্রস্তুত রয়েছে। বিগত দিনে মন্দিরটি ভাঙার পর আমি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের নিত্য দিনের পূজা অর্চনার জন্য একটি মনির গড়ে দিয়েছি। আজ সরকারের হিন্দু ধর্মীয় কল্যান ট্রাষ্ট থেকে ২৫ ল টাকা মঞ্জুর করা হয়েছে। আমি সরকার তথা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে সেজন্য ধন্যবাদ জানাই। সবার নিজ ধর্ম পালনে অধিকার রয়েছে। এনিয়ে যারা ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায়, তাদের প্রতিহত করা হবে।
এর আগে মাননীয় প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহামদ ও মেয়র ইকরামুল হক টিটু মন্দির প্রাঙ্গনে এলে তাদের ফুল দিয়ে বরন করে নেন সাংবাদিক রবীন্দ্রনাথ পাল ও মন্দিরের পুরোহিত দিলীপ চক্রবর্ত্তী। লাল ফিতা কেটে মন্দিরের ভিত্তি প্রস্তর উন্মোচন করেন প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহামদ ও মেয়র ইকরামুল হক টিটু।
রাজা বিজয় সিং ধুরদুরিয়া শিব মন্দির কমিটির সভাপতি শ্রী চন্দন কুমার পাল এর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এডভোকেট রাখাল চন্দ্র সরকার, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এডভোকেট তপন দে, দুর্গাবাড়ী মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক শংকর সাহা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন বিজয় সিং দুরদুরিয়া শিব মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্রী রতন পন্ডিত। এসময় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, আওয়ামীলীগ ও অংগ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, মন্দির কমিটির নেতৃবৃন্দসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।