| |

যমুনা নদীর উপর নির্মিত বঙ্গবন্ধু সেতুর টোল বেড়েছে

মো: তুহিন মিয়া, টাঙ্গাইল: টাঙ্গাইল ও সিরাজগঞ্জ জেলায় অর্ন্তগত যমুনা নদীর উপর নির্মিত বঙ্গবন্ধু সেতুর টোল বেড়েছে। সেতুতেই বড় পণ্যবাহী যানবাহনে ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ টোল বেড়েছে। গত সোমবার (১ নভেম্বর) এ বিষয় সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে সেতু বিভাগ। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে অবিলম্বে বর্ধিত টোল হার কার্যকর হবে।
গত ২৪ জুন সেতু কর্তৃপক্ষের ১১০তম বোর্ড সভায় টোল বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত হয়। তবে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের পর গতকাল প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। যদিও সেতু বিভাগের এমন সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ পরিবহন মালিক-শ্রমিক নেতারা এবং যদিও বাড়তি ভাড়া কর্যাকর করনের ব্যাপারে বাংলাদেশের বিভিন্ন পরিবহন শ্রমিক সংগঠন তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। তারা বলছেন, তাদের সঙ্গে আলোচনা ছাড়াই সরকার টোল বাড়িয়েছে। এতে করে পণ্য পরিবহনে ভাড়া বাড়বে, যার ফলে বাড়বে দ্রব্যমূল্যও।

সেতু কর্তৃপক্ষ (বিবিএ) জানিয়েছে, রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় মেটাতে এবং সেতু নির্মাণে নেওয়া বৈদেশিক ঋণ শোধে ১৭ শতাংশ টোল বৃদ্ধি করা হয়েছে। সফটওয়্যার হালনাগাদের পর আগামী দুই-এক দিনের মধ্যে বর্ধিত হারে টোল আদায় করা হবে সেতুতে চলাচলকারী যানবাহন থেকে।

সেতু বিভাগের সচিব আবু বকর মিডিয়াকে বলেছেন, সেতুতে টোল পদ্ধতি কম্পিউটার বেইজড, সফটওয়্যার হালনাগাদের কাজ চলছে। তা শেষ হলে মঙ্গল কিংবা বুধবার রাত ১২টা থেকে বর্ধিত টোল আদায় শুরু হবে।

বঙ্গবন্ধু সেতুতে তিন এক্সেলের বড় ট্রাকের টোল ৪৩ শতাংশ বাড়িয়ে এক হাজার ৪০০ টাকা থেকে দুই হাজার টাকা করা হয়েছে। বর্তমানে চার এক্সেলের ট্রেইলারেও এক হাজার ৪০০ টাকা টোল নেওয়া হয়। নতুন টোল হার অনুযায়ী, ট্রেইলারকে পৃথক শ্রেণির যান হিসেবে নির্ধারণ করায় তিন হাজার টোল দিতে হবে প্রতিবার বঙ্গবন্ধু সেতু পার হতে।

বাড়তি প্রতি এক্সেলের জন্য এক হাজার টাকা করে টোল দিতে হবে। পণ্য পরিবহনে সর্বোচ্চ ছয় এক্সেলের প্রাইম মুভার চলাচল করে। এ গাড়িতে টোল দিতে হবে পাঁচ হাজার টাকা। এখন দিতে হয় এক হাজার ৪০০ টাকা। এ ছাড়া বঙ্গবন্ধু সেতুতে ট্রেন চলাচলের বার্ষিক টোল ৫০ লাখ থেকে এক কোটি টাকা হয়েছে।

যাত্রীবাহী যানবহনে টোল তুলনামূলক কম বেড়েছে। বঙ্গবন্ধু সেতুতে মটর সাইকেলের টোল ৪০ থেকে বাড়িয়ে ৫০ টাকা, কার ও জিপে ৫০০ থেকে বাড়িয়ে ৫৫০ টাকা করা হয়েছে। বর্তমানে মাইক্রোবাস ও পিকাআপেও টোল ৫০০ টাকা, তা বেড়ে হয়েছে ৬০০ টাকা। ৩২ আসনের কম অর্থাৎ ছোট বাসের টোল ৬৫০ থেকে বাড়িয়ে ৭৫০ টাকা করা হয়েছে। বড় বাসে টোল ৯০০ থেকে এক হাজার টাকা করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু সেতুতে। বড় ও ছোট বাসে যাত্রীপ্রতি তিন থেকে চার টাকা ভাড়া বাড়বে।

বঙ্গবন্ধু সেতুতে ছোট, মাঝারি ও বড়- এই তিন ক্যাটাগরিতে ট্রাকের টোল নেওয়া হয়, নতুন ভাবে ক্যাটাগরি চারটি করা হয়েছে। পাঁচ টনের কম অর্থাৎ ছোট ট্রাকে টোল ৮৫০ থেকে বাড়িয়ে এক হাজার করা হয়েছে। পাঁচ থেকে আট টনের ট্রাকে ৮৫০ টাকার টোল ৪৭ শতাংশ বাড়িয়ে এক হাজার ২৫০ টাকা হয়েছে। আট থেকে ১১ টনের ট্রাকের টোল ৪৫ শতাংশ বেড়েছে। এক হাজার ১০০ থেকে এক হাজার ৬০০ টাকা হয়েছে।

সেতু সচিব ও সেতু কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু সেতুতে সর্বশেষ ২০১১ সালে ১৭ শতাংশ টোল বাড়ানো হয়েছিল। দ্রব্যমূল্য ও জনগণের কথা চিন্তা করেই ১০ বছর পর মাত্র ১৭ শতাংশ টোল বাড়ানো হয়েছে। আরও আগেই টোল বাড়ত, যদিও করোনার কারণে এক বছর পর তা বাড়ানো হয়েছে। #