| |

অষ্টগ্রামে বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন রাষ্ট্রপতি

নজরুল ইসলাম খায়রুল, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের হাওরের অষ্টগ্রাম উপজেলার অবকাঠামোগত বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ পরিদর্শন করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।
শনিবার (১৩ নভেম্বর) বিকেলে তিনি বিভিন্ন উন্নয়মূলক কাজ পরিদর্শন করতে যান।
এসময় উপস্থিত ছিলেন কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, অষ্টগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম জেমস, প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তাসহ রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা।
উন্নয়নমূলক কাজ পরিদর্শন শেষে সন্ধ্যায় তিনি অষ্টগ্রাম রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ অডিটোরিয়ামে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।
এ সময় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ দেশ ও জনগণের কল্যাণে আরো আন্তরিকতার সাথে কাজ করতে জনপ্রতিনিধিদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
রাষ্ট্রপতি বলেন, জনপ্রিয়তা হারানোর ভয়ে মন্দ কোনো কাজে বাধা না দিলে তাতে জনপ্রিয়তা বাড়ে না বরং কমে। স্থানীয় সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে স্থানীয়ভাবে বিনিয়োগ বাড়ানোর তাগিদ দেন রাষ্ট্রপতি।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন-কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, রাষ্ট্রপতি কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব জয়নাল আবেদীনসহ অন্যান্যরা।
পরে সেখান থেকে তিনি মিঠামইনে ফিরে গিয়ে কামালপুর গ্রামের নিজ বাড়িতে রাত্রি যাপন করেন।
এর আগে শনিবার (১৩ নভেম্বর) দুপুরে সড়ক পথে অষ্টগ্রাম উপজেলায় যান রাষ্ট্রপতি।
এছাড়াও রাষ্ট্রতি মো. আবদুল হামিদ মিঠামইনে নির্মাণাধীন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ফাউন্ডেশনের কাজ পরিদর্শন করেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন-মিঠামইন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও রাষ্ট্রপতির ছোট বোন আছিয়া আলম ও প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তাসহ রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা।

গত শুক্রবার (১২ নভেম্বর) রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বিকেল ৪টার দিকে ঢাকার বঙ্গ ভবন থেকে সাত দিনের সরকারি সফরে নিজ উপজেলা মিঠামইনে হেলিকপ্টারে করে অবতরণ করেন। এরপর সেখান থেকে গাড়িতে করে তিনি মিঠামইন ডাকবাংলোতে যান। পরে সেখানে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ গার্ড অব অনার গ্রহণ করেন।

সাত দিনের সরকারি সফরে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ নিজ উপজেলা মিঠামইনসহ অষ্টগ্রাম, ইটনা ও কিশোরগঞ্জ জেলা সদর যাবেন।