| |

বকশীগঞ্জে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থক মধ্যে সংর্ঘষ : পুলিশের গাড়ীতে আগুন, ভাঙচুর, ওসিসহ আহত অর্ধশতাধিক

বকশীগঞ্জ(জামালপুর)প্রতিনিধি : জামালপুরের বকশীগঞ্জে মেরুরচর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মেরুরচর হাছেন আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আওয়ামীলীগের মনোনিত প্রার্থীর সমর্থক ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মাঝে ব্যাপক সংর্ঘষ হয়েছে। এ ঘটনায় প্রায় পুলিশ সদস্য সহ অধশতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছে।

সংর্ঘষে বকশীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি শফিকুল ইসলাম সম্রাট ও ওসি তদন্ত আব্দুর রহিম ৫ পুলিশ সদস্যসহ অর্ধশতাধিক স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থক আহত হয়েছে। আহত গ্রামবাসীদের নাম ও পরিচয় তাৎক্ষনিক পাওয়া যায়নি।

সংর্ঘষের ঘটনায় বকশীগঞ্জ থানা পুলিশের গাড়ী অগ্নি সংযোগসহ পুলিশের এএসপি গাড়ী ভাঙচুর করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দুই শতাধিক রাউন্ড গুলিও করা হয়েছে। এ ঘটনায় জামালপুর পুলিশ সুপার নাসির উদ্দিন আহমদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

স্থানীয়রা জানান আজ বেলা সাড়ে ১২টার দিকে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী সিদ্দিকুর রহমান কেন্দ্রে প্রবেশ করলেও স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোয়ার হোসেনের সমর্থকদের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে।

পরে তারা একত্রিত হয়ে কেন্দ্রের মধ্যে হামলা চালায়। হামলায় এ.এসপি রাকিবুল হাসান রাসেল ও বকশীগঞ্জ থানার ওসি শফিকুল ইসলাম সম্রাট অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। আগুন দেওয়া হয় পুলিশের গাড়ীতে। এ সময় ৪টি মোটরসাইকেলেও আগুণ দেয় বিক্ষুব্দ এলাকাবাসী। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন আনতে ২ শতাধিক রাউন্ড গুলি করা হয়। পরে র‌্যাব, বিজিবি ও অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ৭জনকে আটক করা হয়েছে।

বন্ধ হয়ে যায় মেরুরচর হাসেন আলী উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্র।

জামালপুর পুলিশ সুপার (এসপি) নাসির উদ্দিন আহাম্মেদ সাংবাদিকদের জানান, এ ঘটনায় ৭জনকে আটক করা হয়েছে। এ নিয়ে বকশীগঞ্জ থানায় নিয়মিত মামলা করা হবে। অপরাধীদের ছাড় দেওয়া হবে না।