| |

ঈশ্বরগঞ্জে পল্লী বিদ্যুতে ব্যাপক অনিয়ম দূর্নীতি গ্রাহকরা হয়রানির শিকার

ঈশ্বরগঞ্জ প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে বিদ্যুৎ বিহীন গ্রামে পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ দেয়ার নামে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে দালালদের সহযোগীতায় এক শ্রেণীর দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরে জমিন উপজেলার সরিষা ইউনিয়নের মহেশপুর, গাংপাড়া গ্রামে গতকাল বুধবার স্থানীয় ইউপি সদস্য নুরুল হুদার বাড়ির সামনে গিয়ে দেখা যায় প্রায় দুই শতাধিক নারী পুরুষ পল্লী বিদ্যুতের দালাল কাশিপুর গ্রামের হেলাল উদ্দিনের ছেলে সন্তোষ খাঁর কাছে বিদুৎ সংযোগ দেয়ার পাওনা টাকা ফেরত দেয়ার জন্য এক শালিস বসেছে। ভোক্তভোগী বিদ্যুৎ সংযোগ প্রত্যাশীদের অভিযোগ গত এক বছর পূর্বে সন্তোষ খাঁ মহেশপুরের গাংপাড়া ও কুর্শিপাড়া গ্রামে প্রায় ৫ কিলোমিটার এলাকায় বিদ্যুৎ দেয়ার কথা বলে প্রত্যেক গ্রাহকের কাছ থেকে অগ্রিম ৫ হাজার টাকা করে নেয়। বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার পর আরও ৫ হাজার টাকা দিতে হবে বলে জানান। ২১৬টি আবাসিক ৭টি বাণিজ্যিক ১৩টি অগভীর নলকূপ ২টি রাইস মিলে বিদ্যুৎ সংযোগের নামে ৪ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়। গত এক বছরেও বিদ্যুৎ না পাওয়ায় ভোক্তভোগীরা বিক্ষোদ্ধ হয়ে শালিসে সন্তোষ খাকে টাকা ফেরত দেয়ার জন্য অবরুদ্ধ করে। পরে এলাকাবাসীর চাপের মুখে আগামী এক মাসের মধ্যে টাকা ফেরত দেওয়ার প্রতিশ্রুতিতে সন্তোষ ছাড় পায়। ভোক্তভোগীদের কাছ থেকে প্রাপ্ত অভিযোগে জানা যায় এ দূর্নীতির সাথে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ৩ এর আর ই আবুল কালাম জড়িত রয়েছেন । দীর্ঘ ৮ বছর ধরে একই কর্মস্থলে থেকে দালালদের যোগসাজসে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে সাধারণ মানুষদের হয়রানী করে আসছে। অভিযোক্ত আর ই তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বিকার করেন । এ ব্যাপারে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার এ ইচ এম রেজাউল্লাহ্ খান জানান পল্লী বিদ্যুৎকে দূর্নীতিমুক্ত করার জন্য প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি । এ বিষটি আমার জানা নেই বিষটি তদন্ত করে দেখা হবে।