| |

শাশুড়ীকে পিটিয়ে তালাকনামায় স্ত্রীর স্বাক্ষর নেওয়ার চেষ্টা

নিজস্ব সংবাদদাতা ঃ শাশুড়ীকে মারধর করে তালাকনামায় স্ত্রী সেলিনা খাতুনের স্বাক্ষর নেওয়ার চেষ্টা করে ব্যার্থ হয়েছে স্বামী সোহেল মিয়া ও তার লোকজন। আহত শাশুড়ী মিনারা খাতুনকে(৫৫) ভালুকা উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাটি ভালুকা উপজেলার মল্লিকবাড়ি ইউনিয়নের জোয়াধরা গ্রামে। ওই ঘটনায় সেলিনা খাতুন বাদি হয়ে ভালুকা মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগে জানা যায়, আট দশ বছর আগে উপজলার পাঁচগাও গ্রামের নুরুল ইসলামের পুত্র সোহেল মিয়া একই উপজেলার মল্লিকবাড়ি জোয়াধরা গ্রামের হানিফ মিয়ার কণ্যা সেলিনা খাতুনকে ভালবেসে বিয়ে করেন। বিয়ের পর সুখে শান্তিতেই বসবাস করে আসছিল ওই দম্পতি। বিয়ের দুই বছর পর স্বামী সোহেল মিয়া বিদেশ যেতে চাইলে সেলিনা খাতুন বাপের বাড়ি থেকে ২ লাখ টাকা এনে দেন। পরে ওই টাকায় ওমানে পাড়ি জমান সোহেল মিয়া। বিদেশ যাওয়ার কিছুদিন বরণ পোষণের খরচ দিলেও পরবর্তীতে স্ত্রী সেলিনার সাথে সকল প্রকার যোগাযোগ বন্ধ করে দেন স্বামী সোহেল মিয়া। এ অবস্থায় পিত্রালয়ে চলে আসেন সেলিনা খাতুন। এদিকে মাসখানেক আগে ওমান থেকে দেশে ফিরে সোহেল মিয়া তার স্ত্রীকে নানান অভিযোগে তালাক দেওয়ার ষড়যন্ত্র করতে থাকে এবং ওই ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে গত ৯মার্চ সন্ধ্যায় সোহেল ও তার পরিবারের লোকজন সেলিনাকে মল্লিকবাড়ি গ্রামের সিদ্দিকের বাড়িতে ডেকে এনে তালাকনামায় জোড়পূর্বক স্বাক্ষর নেওয়ার চেষ্টা করে। ওই সময় শাশুড়ী মিনারা খাতুন বাধা দিলে সোহেল ও গৃহকর্তা সিদ্দিক তাকে পিটিয়ে আহত করে। পরে এলাকার লোকজন টের পেয়ে মিনারাকে উদ্ধার করে ভালুকা উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করে।