| |

মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিল দাবি বিএনপির

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ফল বাতিল করে পুনরায় সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে বিএনপি।
রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ে গতকাল রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে দলের মুখপাত্র ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন এ দাবি জানান।
রিপন বলেন, ‘গত পরশু মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেই পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযাগ উঠলেও সরকার তা অস্বীকার করছে। অথচ এ অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সহকারী পরিচালকসহ কয়েকজনকে গ্রেফতারও করা হয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘প্রশ্নপত্র যদি ফাঁস নাই হতো তাহলে কেন ইউজিসির মতো একটি রাষ্ট্রায়ত্ত জাতীয় প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাকে র‌্যাব গ্রেফতর করল?’
রিপন বলেন, ‘এমন ঘটনা অন্য কোনো দেশে ঘটলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ওই দিনই লজ্জায় পদত্যাগ করতেন। অথচ আমাদের দেশে সেই নজির নেই। উল্টো বিরোধী দল থেকে কোনো মন্ত্রীর পদত্যাগের দাবি করা হলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীর মন্ত্রিত্ব আরও পোক্ত হয়। সরকার মনে করে বিরোধী দলের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রিত্ব চলে গেলে বিরাধী দলের দাবিকেই প্রতিষ্ঠা করা হবে।’
তিনি বলেন, ‘ছাত্রছাত্রীদের দাবিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সরকার একগুয়েমির পরিচয় দিয়েছে। তাদের আন্দোলনে বিএনপির নৈতিক সমর্থন থাকবে।’ এ সময় তিনি মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষা বাতিল করে নতুন করে পরীক্ষা নেওয়ার দাবি করেন।
বিএনপি মুখপাত্র বলেন, ‘দেশটা তো গোল্লায় যাচ্ছে। সরকার কোনো কিছুই সিস্টেম মতো চালাতে পারছে না। সব কিছুতেই তারা ব্যর্থ হচ্ছে।’
তিনি বলেন, ‘এমনিতেই দেশটা তারা লুটেপুটে খাচ্ছে। এখন কোরবানির হাট-বাজারও আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নামে ইজারা দেওয়া হয়েছে। তারা আগের তুলনায় দিগুণ-তিনগুণ হাসিল আদায় করছে। জনগণের দুর্ভোগ কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে।’
রিপন বলেন, ‘আগে বিভিন্ন ধরনের ছিনতাই ডাকাতির কথা শোনা গেলেও এখন সারাদেশে গরু ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। পুলিশের পক্ষে বলা হয়েছে, যত্রতত্র পশুর হাট বসবে না। পুলিশের এ কথাটাকে পুঁজি করে যত্রতত্র গরু নিয়ে যেতে বাধা দিচ্ছে যুবলীগ ও ছাত্রলীগ। শাসক দলের লোকেরা বেআইনীভাবে আইন প্রয়োগ করছে।’
টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে মা ও ছেলেকে নির্যাতন এবং পুলিশের গুলিতে হত্যার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে রিপন বলেন, ‘দেশের ল’ এ্যান্ড অর্ডার সিচুয়েশন কতটা খারাপ হলে এরকম ঘটনা ঘটতে পারে। মানুষ কতটা অসহিঞ্চু হয়ে গেলে এতবড় পাশবিক ঘটনা ঘটাতে পারে। গত ৪৫ বছরে আমরা এ ধরনের ঘটনার কথা শুনিনি। এ পাশবিক ঘটনার প্রতিবাদে মানুষ রাস্তায় নেমে এসেছিল। তাদের এ অহিংস প্রতিবাদ দমন করতে সরকার সহিংস পথ বেছে নিয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘সামগ্রিকভাবে দেশে নৈরাজ্যকর পরিস্থিত বিরাজ করছে। শাসক দল স্বৈরাচারী হয়ে উঠেছে। তাদের এ রকম মনোভাবের কারণে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে জনমনে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।’
বিএনপির মুখপাত্র বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এবার দেশের বাইরে থাকায় দলের পক্ষ থেকে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হবে না। তবে ঈদের দিন বিকেল ৪টায় শেরেবাংলা নগরে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মাজারে শ্রদ্ধা জানাবে বিএনপি।’
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন, মহিলা দলের সভাপতি নূরে আরা সাফা, সহ-দফতর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন প্রমুখ।